স্বাস্থ্য

স্বাস্থ্যের জন্য আপেলের উপকারিতা ও অপকারিতা

‘An Apple a Day , Keeps Doctor Away’ একটি খুব বিখ্যাত ইংরেজি প্রবাদ, যার মতে, প্রতিদিন একটি আপেল খাওয়া ডাক্তারকে দূরে রাখতে পারে। এর কারণ হলো আপেল স্বাদে চমৎকার হওয়ার পাশাপাশি পুষ্টির ভান্ডার। আপনি কি জানেন যে আপনি ওষুধ হিসেবেও আপেল ব্যবহার করতে পারেন? হ্যাঁ, অনেক রোগ সারাতেও আপেল ব্যবহার করা হয়।

সারা বিশ্বে আপেলের জুস খুবই জনপ্রিয়। এটি বাজারে রেডিমেডও পাওয়া যায়, তবে ঘরে তোলা রস বেশি উপকারী। সকালে খালি পেটে আপেল খেলে শরীর থেকে অনেক ধরনের রোগ দূরে রাখা যায়। আয়ুর্বেদে আপেলের উপকারিতা বিশদভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। আপেলের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন।

আপেল একটি লাল বা সবুজ রঙের ফল, যা ভিটামিন সমৃদ্ধ। বৈজ্ঞানিক ভাষায় একে বলা হয় ‘মেলুস ডমেসিকা’ । আপেল গাছ প্রায় 3 থেকে 7 মিটার উচ্চতায় বৃদ্ধি পায়। এর বাকল বাদামী বর্ণের। এর ফুল গোলাপি থেকে সাদা বা রক্তের রঙের হয়। এর ফল মাংসল এবং প্রায় গোলাকার। আপেল কাঁচা অবস্থায় সবুজ এবং স্বাদে টক। এটি লাল রঙের এবং পাকলে মিষ্টি হয়। আপেলের বীজ ছোট, কালো রঙের এবং চকচকে।

আপেলের উপকারিতা এবং ব্যবহার

আপেল পুষ্টিগুণে ভরপুর, এবং এই কারণেই বেশিরভাগ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা প্রতিদিন একটি আপেল খাওয়ার পরামর্শ দেন। অনেকেই আপেলের জুস খেতে পছন্দ করেন। আয়ুর্বেদ অনুসারে, চর্মরোগ, পোড়া, হার্ট অ্যাটাক, জ্বর, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় আপেল উপকারী। এটি মানসিক রোগ, অ্যাসিডিটি, জ্বর, উচ্চ রক্তচাপের পাশাপাশি আমাশয়েও উপকারী। আপেল সেবনে দুর্বলতা, বদহজম এবং শ্বাসকষ্টে উপকারী। এটি লিউকোরিয়া, দাঁতের রোগ, বাত, পাথর, রক্তশূন্যতা দূর করে। আসুন জেনে নেই আপেলের উপকারিতা সম্পর্কেঃ-

দাঁতের রোগের চিকিৎসায় আপেলের উপকারিতাঃ

আপেল চিবানোর ফলে বেশি লালা তৈরি হয়, যা মুখ পরিষ্কার করার পাশাপাশি ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধ করে। এইভাবে আপেল খেলে আপনার দাঁত ও মাড়ি সুস্থ থাকে। আপেল খেলে মুখের রোগ কিছুটা হলেও প্রতিরোধ করা যায়।

চোখের রোগের চিকিৎসায় আপেলের উপকারিতাঃ

আপেল অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ফাইবার, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন বি পাওয়া যায়। রাতে কম দৃষ্টির সমস্যায় এর নিয়মিত ব্যবহার উপকারী। শুধু তাই নয়, আপেল চোখের অন্যান্য সমস্যা যেমন ছানি, গ্লুকোমা ইত্যাদি থেকেও রক্ষা করে। আপেল পিষে, রান্না করে চোখে বেঁধে রাখলে চোখের রোগ ভালো হয়।

আপেল কাশির সাথে লড়াইয়ে ব্যবহার করেঃ

১ গ্লাস আপেলের রস বের করুন। এতে চিনি মিশিয়ে সকালে পান করুন। এটি শুকনো কাশিতে উপকারী। মূর্ছার সমস্যায়ও এটি উপকারী। শুকনো কাশিতে সম্পূর্ণ উপকার পেতে হলে প্রতিদিন পাকা মিষ্টি আপেল খেতে হবে।

বদহজমের জন্য আপেলের উপকারিতাঃ

আপেল খেলে পেটের রোগ নিরাময় হয়। ঘুমানোর সময় দুটি আপেল খান। এটি কয়েক দিনের জন্য করুন, মানে কমপক্ষে 7 দিন। এতে পেটের কৃমি মরে মলের সঙ্গে বেরিয়ে আসে। আপেল খাওয়ার পর সারারাত পানি খাবেন না। খালি পেটে আপেল খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য সেরে যায়। সকালে খোসাসহ আপেল খেলেও কোষ্ঠকাঠিন্য সেরে যায়।

আপেল পেটের রোগে উপকারীঃ

আপেলে থাকা টারটারিক অ্যাসিডের কারণে এটি খুব দ্রুত হজম হয়। এর সাথে অন্যান্য খাবারও হজম করে। এর সাথে, আপেলের মোরব্বা খাওয়া পেট সংক্রান্ত রোগেও উপকারী।

আপেল অন্ত্রের রোগে উপকারীঃ

আপেল খেলে তৃষ্ণা মেটে এবং অন্ত্র সুস্থ থাকে। আপেলের আমাশয় দূর করার গুণ রয়েছে, তাই আপেল ভুনা করে খাওয়া অন্ত্রের রোগে খুবই উপকারী।

আপেলের ঔষধি গুণাবলী বমি বন্ধ করতে উপকারীঃ

আপনি যদি ঘন ঘন বমির সমস্যায় ভুগে থাকেন তবে আন্ডারপাকা আপেলের 5-15 মিলি রস পান করুন। এতে বমি হওয়া বন্ধ হয়।

আপেল খাওয়ার মাধ্যমে রক্তাক্ত আমাশয় প্রতিরোধঃ

পোস্তের ক্বাথের মধ্যে আপেলের শরবত মিশিয়ে পান করলে রক্ত ​​আমাশয়ে উপকার পাওয়া যায়। আপেল খাওয়ার উপকারিতার কারণে এটি পেট সংক্রান্ত সমস্যায় খুবই উপকারী বলে প্রমাণিত হয়।

ত্বকের রোগে আপেলের উপকারিতাঃ

আপেল পাতার পেস্ট লাগালে চর্মরোগ সেরে যায়। আপেল গাছের গোড়া পিষে হার্পিস-স্ক্যাবিস জায়গায় লাগান। এটা লাভজনক।
আপেল শুধু ত্বকের রোগ নিরাময় করে না ত্বকের জন্য দারুণ ফেসপ্যাক হিসেবেও কাজ করে। একটি আয়ুর্বেদিক বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে ফেসপ্যাক হিসাবে এটি ব্যবহার সম্পর্কে তথ্য নিতে পারেন।

ফোস্কায় আপেলের ঔষধি গুণের উপকারিতাঃ

অনেক সময় রান্না করার সময়, গরম পানি বা কোনো বৈদ্যুতিক যন্ত্র দিয়ে জ্বালানোর সময় ত্বকে ফোস্কা পড়ে যা অনেক কষ্ট দেয়। এমন অবস্থায় আপেল পাতা পিষে পোড়া জায়গায় লাগান। এটা খুবীই উপকারী।

বিভ্রম থেকে মুক্তি পানঃ

হ্যালুসিনেশন হল এমন একটি অবস্থা যেখানে একজন ব্যক্তির অসুস্থ হওয়ার ভ্রম থাকে। ব্যক্তি শরীরের কোনো অংশে রোগের কথা কল্পনা করতে শুরু করে বা রোগ নিয়ে চিন্তা করতে শুরু করে। একে ইংরেজিতে হাইপোকন্ড্রিয়াক বলা হয়। আয়ুর্বেদে একে ‘পিটনম্যাড’ বলা হয়। এর জন্য আপেলের শরবতে ব্রাহ্মী-চূর্ণ মিশিয়ে পান করুন। বিভ্রান্তিতে এটি উপকারী।

আপেল সেবন স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য উপকারীঃ

আপেলের জুস খেলে মন ও হৃদয় শক্তিশালী হয়। আপেল মস্তিষ্কের কোষকে সুস্থ করতে কাজ করে। শিক্ষার্থীদের জন্য, আপেল স্মৃতিশক্তি এবং মস্তিষ্কের শক্তি বৃদ্ধির একটি সহজ উৎস।

ক্যান্সারে আপেলের উপকারিতাঃ

প্রতিদিন আপেল খাওয়া ক্যান্সারের উপসর্গগুলিকে দূরে রাখতে সাহায্য করে কারণ একটি গবেষণা অনুসারে, আপেলে ক্যান্সার প্রতিরোধী গুণ পাওয়া যায়।

আপেলের ঔষধি গুণাবলী ওজন কমাতে উপকারী

আপেল খাওয়া আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে কারণ একটি গবেষণা অনুসারে, আপেল হাইপো ক্যালোরিক ডায়েট হিসাবে পরিচিত।

আপেল হার্টকে সুস্থ করে তোলেঃ

একটি গবেষণা অনুসারে, আপেলে কার্ডিও-প্রতিরক্ষামূলক বৈশিষ্ট্যের কারণে এটি হৃদরোগের জন্য উপকারী।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আপেলের উপকারিতাঃ

আপেল খাওয়া আপনার ডায়াবেটিসের মাত্রা রক্তে অনিয়ন্ত্রিত হতে দেয় না কারণ আপেলের গ্লাইসেমিক সূচক কম থাকে।

কোলেস্টেরল কমাতে আপেলের উপকারিতাঃ

আপেল আপনাকে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে, এতে থাকা ফাইবারের কারণে এটি শরীরে কোলেস্টেরল জমতে দেয় না।

বৃশ্চিক দংশনের বিরুদ্ধে আপেলের উপকারিতাঃ

বিছার কামড়ের জন্যও আপেল ব্যবহার করতে পারেন। 100 মিলি আপেলের রসে 500 মিলিগ্রাম কর্পূর মেশান। এটি খেলে বিচ্ছুর বিষ দূর হয়।

আপেল গাছের দরকারী অংশঃ

  • ফল
  • পাতা
  • বাকল

আপেল কিভাবে ব্যবহার করবেন

আপেল একেবারে 1 থেকে 3 টি খেতে পারেন

আপেল রস 5-15 মিলি খেতে পারেন।

আপেলের সম্পূর্ণ উপকারিতা পেতে একজন আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

আপেল কোথায় পাওয়া যায় বা জন্মায়

আপেল পাহাড়ি অঞ্চলে জন্মানো একটি ফল। এটি উত্তর-পশ্চিম হিমালয়ে প্রায় 2,700 মিটার উচ্চতায় বৃদ্ধি পায়। এর চাষ প্রধানত হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড এবং জম্মু ও কাশ্মীরের অনেক এলাকায় করা হয়। কাশ্মীরের আপেল খুবই বিখ্যাত। এটি মূলত মধ্য এশিয়ার একটি ফল, তবে পরে এটি ইউরোপেও জন্মে। এটি এশিয়া এবং ইউরোপ থেকে উত্তর আমেরিকায় বিক্রি হয়। গ্রীস এবং ইউরোপেও এর ধর্মীয় গুরুত্ব রয়েছে।

5/5 - (34 votes)

Momtahina Momo

আমি একজন স্বাস্থ্য ও রূপচর্চা বিষয়ক ব্লগার। সঠিক তথ্য উপস্থাপনের জন্য আমি বিভিন্ন ডাক্তারের কাছে পরামর্শ নিয়ে থাকি। এই বিষয়ে আমি খুবই আগ্রহী এবং অনলাইনে নিয়মিত রিসার্চ করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button