ইনস্টাগ্রাম মার্কেটিং কিভাবে করবেন?

আজকের পোস্টে আপনারা জানতে পারবেন ইনস্টাগ্রাম মার্কেটিং করার কমপ্লিট গাইডলাইন।

আমরা আজকাল ডিজিটালাইজেশন এর ছোয়া দেখছি সব জায়গায়। মানুষ এখন অনেক বেশি আত্মনির্ভরশীল হচ্ছে এর পাশাপাশি গড়ে উঠছে বিভিন্ন ধরনের স্টার্টআপ।চারপাশে ছড়িয়ে পড়ছেন উদ্যোক্তারা।এসব ছোট স্টার্টআপকে বড় করে তুলতে সঠিক মার্কেটিং স্ট্রাটেজি অনুসরণ করা অনেক প্রয়োজন।

ছোট থেকে বড় স্টার্টআপ এর প্রচারের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার এর জুড়ি নেই। বর্তমানে সকল সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রাম হয়ে উঠেছে সবচেয়ে শক্তিশালী এবং জনপ্রিয়।

আপনার ব্যবসায় সফলতার জন্য ইনস্টাগ্রাম সোশ্যাল মিডিয়া একটি শক্তিশালী প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করতে পারে। বর্তমানে ইন্সটাগ্রাম ব্যবহারকারীদের সংখ্যা ১.০৭৪বিলিয়ন।

Contents

ইনস্টাগ্রাম কি?

ইনস্টাগ্রাম হলো এমন একটি সোশ্যাল মিডিয়া সফটওয়্যার যেখানে মানুষ তাদের ব্যবসা বা তাদের ব্যক্তিগত প্রোফাইল এর প্রোমোশন করে থাকে ছবি বা ভিডিওর মাধ্যমে।

এই সোশ্যাল মিডিয়া সফটওয়্যার টিতে ব্যবহার করা হয়েছে অসংখ্য ফিচার, ফিল্টার, এলগরিদম এবং অনেক শক্তিশালী কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, যার সাহায্যে অনেক সহজেই হাজারো মানুষের কাছ পর্যন্ত নানা ব্যবসার প্রচারণা করা সম্ভব হয়ে উঠে নিমিষেই।

ইনস্টাগ্রাম এ নিজের ব্যবসা বা সেল্ফ প্রমোশন এর জন্য আপনার খুব বেশি ইনভেস্টমেন্ট প্রথমেই প্রয়োজন নেই। আপনার যদি একটি স্মার্টফোন থেকে থাকে তাহলেই খুব সহজে আপনি এই সোশ্যাল মিডিয়াটি ব্যবহার শুরু করতে পারেন। এটা যেহেতু ভিজুয়াল কন্সেপ্ট এর উপর বানানো একটি সফটওয়্যার তাই এখানে ভালো রেজুলেশন এর ছবি এবং ভিডিও আপলোড করা গুরুত্বপূর্ণ।

এখানে একটি আকর্ষণীয় ব্যপার হলো ইন্সটাগ্রাম ব্যবহার এর শুরুতেই নিদিষ্ট কোনো ওয়েবসাইট বানানো, এড রান করার মতো কাজগুলো এতটা গুরুত্বপূর্ণ নয় বরং কিছু নিয়ম মেনে নিয়মিত পোস্ট করার মাধ্যমেই আপনি পেতে পারেন আপনার টার্গেটেড অডিয়েন্স। সময়ের সাথে সাথে ব্যবসার মান উন্নয়ন করার জন্য পরবর্তীতে আপনি বাকি কাজগুলো করতে পারেন।

ইনস্টাগ্রাম এ ছোট ছোট বিজনেস অনেক জনপ্রিয়। যেমন ইনফ্লুয়েন্সার, দেশীয় কিংবা ওয়েস্টার্ন কাপড় এর ব্যবসা, হাতে বানানো গহনা,কাঠের তৈরি কোনো ডেকোরেশন এর জিনিস,আর্টিস্ট, ফুড ব্লগার, প্রোডাক্ট রিভিউয়ার, ফোটোগ্রাফার বা ভিডিওগ্রাফার, ইনস্টাগ্রাম ম্যানেজার, এফিলিয়েট মার্কেটিং ইত্যাদি।

ব্যবসার প্রচারণার জন্য ইনস্টাগ্রাম মার্কেটিং কেন গুরুত্বপূর্ণ?

ইনস্টাগ্রাম এমন একটি সোশ্যাল মিডিয়া যেখানে নির্দিষ্ট একটি প্রোডাক্ট এর নির্দিষ্ট কাস্টমারের কাছে সহজেই পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়। যেহেতু এর ব্যবহারকারীদের সংখ্যা অনেক বেশি,তাই এই সোশ্যাল মিডিয়াটিতে নিজের অস্তিত্ব ধরে রাখতে কিছু নিয়ম মেনে চলা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

যে কোন ব্যবসার জন্য ইনস্টাগ্রাম একটি ভিজুয়াল ফেইস হিসেবে কাজ করতে পারে যেখানে নির্দিষ্ট প্রোডাক্টের ছবি কিংবা ভিডিও আপলোড করতে হয় ভিউয়ারদের জন্য। ভিউয়ারদের যখন প্রয়োজন হবে তখন সে নির্দিষ্ট প্রোডাক্ট আপনার প্রোফাইল থেকে কিনে নিতে পারবে।

যে নিয়মগুলো মেনে চলার মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসায়িক প্রোফাইল এর মান উন্নয়ন করে আপনার ব্যবসায় সফলতা নিশ্চিত করতে পারবেন সেই সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিচে আলোচনা করা হলো :

ইনস্টাগ্রাম মার্কেটিং গাইডলাইন

১. ইনস্টাগ্রামে প্রথমেই একটি বিজনেস প্রোফাইল ওপেন করুন

আমরা জানি যে ইনস্টাগ্রামে দুই ধরনের একাউন্ট ক্যাটাগরি রয়েছে। একটি হলো প্রাইভেট এবং আরেকটি হলো ব্যাবসায়িক একাউন্ট। ব্যবসায়িক একাউন্ট সবসময়ই পাবলিক থাকে। ব্যাবসায়িক প্রচারণার জন্য।

কোম্পানির মালিক কে অবশ্যই একটি ব্যবসায়িক একাউন্ট ওপেন করতে হবে। আর যদি কারো অলরেডি প্রোফাইল থাকে তাহলে সেই প্রোফাইলকে ব্যবসায়ীক প্রোফাইলে রূপান্তর করতে হবে।

২. ইনস্টাগ্রামের বিভিন্ন ফিচারস ব্যবহার করুন

আমরা জানি ইনস্টাগ্রাম অনেক জনপ্রিয় একটি সোশ্যাল মিডিয়া এবং এর বিভিন্ন ফিচার এর জন্যই এর জনপ্রিয়তা এত বেশি। এবং একসাথে এই ফিচার গুলো বিজনেস প্রোফাইল প্রমোট এর জন্য কার্যকরীও বটে।

ইনস্টাগ্রামে যেহেতু শুধুমাত্র ছবি কিংবা ভিডিও আপলোড করা যায় সুতরাং উন্নত রেজুলেশন এবং রিলিভিন্ট কনটেন্ট আপলোড এর মাধ্যমে দর্শকদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা সম্ভব আপনার প্রোডাক্টের জন্য। ইন্সটাগ্রাম ভিডিও, আইজিটিভি, রিলস, স্টোরি, এরকম বিভিন্ন ফিচার রয়েছে যা ব্যবহারের মাধ্যমে আপনি আপনার প্রোডাক্ট পৌঁছে দিতে পারেন হাজারো মানুষের কাছে।

৩. মানসম্পন্ন প্রোফাইল তৈরি করুন

আপনার ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল টি হতে পারে আপনার ব্যবসার একটি ভিজুয়াল ফেইস। এর অর্থ হলো যে কেউ যখন আপনার প্রোফাইল ভিজিট করলে আপনার আপলোড করা কনটেন্ট গুলো দেখে বুঝে নিতে পারবে যে, আপনার প্রোফাইলটি কি সম্পর্কিত।

তাই আপনি যদি আপনার ভোক্তাদের অংশগ্রহণ বাড়াতে চান তাহলে, অবশ্যই আপনাকে একটি মানসম্মত বায়োগ্রাফি, আপনার ব্যবসার ইনফরমেশন সমূহ, আপনার কন্টাক্ট ইনফরমেশন, ওয়েল ডেকোরেটেড হাইলাইটস ব্যবহার করতে হবে। যা আপনার প্রোফাইলকে আরো বেশি আকর্ষণীয় করে তুলবে।

৪. হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন

ইনস্টাগ্রাম এ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার এর মাধ্যমে ও নির্দিষ্ট প্রোডাক্ট খুজে বের করা সম্ভব। নির্দিষ্ট হ্যাশট্যাগ ব্যবহারে আপনার প্রোফাইলটি ও নির্দিষ্ট ক্যাটাগরিতে ভাগ হয়ে যায়।হ্যাশট্যাগ সিলেক্ট করার ক্ষেত্রে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে যে পপুলার বা সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হ্যাশট্যাগ ই ব্যবহার করুন।

৫. বুস্ট প্রোডাক্ট /সেল

প্রোডাক্ট বুস্ট বা সেল করার জন্য অ্যাডভার্টাইজমেন্ট আরেকটি জনপ্রিয় মাধ্যম। আপনার কনটেন্ট সঠিক দর্শকের কাছ পর্যন্ত পৌঁছে দেওয়ার জন্য এবং নির্দিষ্ট দর্শকদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করবার জন্য আপনার অবশ্যই একটি নির্দিষ্ট বাজেট, সময়সীমা আর উদ্দেশ্য থাকা প্রয়োজন। এটি একই সাথে আপনার প্রোফাইলে ভোক্তার উপস্থিতি নিশ্চিত করবে বা বাড়াবে এবং এর সাথে সাথে আপনার ব্যবসায় সফলতা আনতে সাহায্য করবে।

৬. নির্দিষ্ট ভোক্তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করুন ফলো করা

ইনস্টাগ্রামে ভোক্তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করবার জন্য ইনস্টাগ্রাম ট্রেন্ডস অনুসরণ করা, ইনস্টাগ্রামে লাইভ করা, স্টোরিজ দেওয়া, অডিয়েন্সের ফিডব্যাক নেওয়া, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন উপহার দেয়া, কম্পিটিশন এর আয়োজন করা প্রয়োজন। এগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার প্রোফাইলে একসাথে অনেক মানুষের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারবেন। এতে করে আপনার অ্যাকাউন্টের ট্রাফিক অনেক বেশি বাড়বে এবং আপনার সেই সাথে বিক্রয় বাড়বে বহুগুণে।

৭. হাই কোয়ালিটি ছবি আপলোডে মনোনিবেশ করুন

যেহেতু ইনস্টাগ্রাম এমন একটি সোশ্যাল মিডিয়া যেখানে শুধুমাত্র ছবি কিংবা ভিডিও আপলোড করা যায়। তাই অবশ্যই হাই রেজুলেশন এবং উন্নতমানের ছবি আপলোড করতে হবে। সে ক্ষেত্রে স্মার্টফোন / ডিএসএলআর ব্যবহার করা যেতে পারে। ব্লার বা অপরিচ্ছন্ন ছবি আপনার প্রোফাইল এর মান কমিয়ে দিতে পারে।

৮.দিনে বা রাতে একটি নির্দিষ্ট সময়ে আপনার কনটেন্ট আপলোড করুন

দিনে কিংবা রাতে যেকোনো সময়ই ইনস্টাগ্রামে ছবি আপলোড করতে পারেন। কিন্তু সে ক্ষেত্রে আপনার খেয়াল রাখতে হবে আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট সময় মেনটেইন করে কনটেন্ট আপলোড করেন তাহলে ওই নির্দিষ্ট সময়ে দর্শক বা গ্রাহকরা তাদের কাঙ্খিত প্রোডাক্টটি সম্পর্কে জানতে পারবে। এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসার বিক্রয় বাড়ানোর পাশাপাশি আপনার একাউন্টটি অনেক মানুষ পর্যন্ত পৌঁছে যাবে।

৯. নিয়মিত পোস্ট করুন

ইনস্টাগ্রাম মার্কেটিং এ সফল হতে হলে নিয়মিত পোস্ট করবার কোনো জুড়ি নেই। ইনস্টাগ্রাম অ্যালগরিদম এমন ভাবে কাজ করে যে নিয়মিত পোস্ট করলে আপনাকে অলরেডি যারা ফলো করছে তারা যেমন আপনার প্রোফাইলে অনেকটা সময় পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকবে। এর পাশাপাশি তাদের মাধ্যমে আপনি নতুন গ্রাহক পেতে পারেন আপনার প্রোফাইলের জন্য।

১০. কল টু একশন বাটন ব্যবহার করুন

আপনার প্রোফাইলে প্রয়োজন অনুযায়ী কল টু একশন বাটন ব্যবহার করতে পারেন। যে বাটনে "shop now" বা সংশ্লিষ্ট কিছু একটি সূচক হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। এর সাথে ওই বাটনে আপনি আপনার ওয়েবসাইট বা বিজনেস রিলেটেড কিছু ইনফরমেশন লিংক করে দিতে পারেন। এই বাটন একটি ডিরেক্টরি হিসেবে কাজ করবে এবং আপনার গ্রাহককে সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইট বা ব্যবসায়ী কোন তথ্য পেতে সাহায্য করবে।

১১. বিভিন্ন প্রোডাক্ট এর ডিসকাউন্ট দিন

ডিসকাউন্ট পেলে সকলেই খুশি হয়, আর তা যদি হয় আপনার পছন্দের কোন প্রোডাক্টে তাহলে তা কেনার জন্য মানুষ উঠেপড়ে লাগে। তাই আপনার প্রোফাইলে আপনার গ্রাহকদের অংশগ্রহণ বাড়ানোর জন্য আপনি মাঝেমধ্যেই আপনার প্রোডাক্টের ওপর ডিসকাউন্ট দিতে পারেন। এতে করে আপনার বিক্রয় অনেক বেশি বাড়বে এবং আপনার একটি ছোট ডিসকাউন্ট এর মাধ্যমে আপনার প্রোফাইল অন্যান্য অনেক মানুষের কাছ পর্যন্ত পৌঁছে যাবে।

১২. ভোক্তাদের মতামত নিন

আপনি যে প্রোডাক্টটি বিক্রয় করুন না কেনো, অবশ্যই সে প্রোডাক্ট আপনার গ্রাহকদের কাছে কেমন লাগছে, তা জানার চেষ্টা করবেন এবং তাদের কাছ থেকে মতামত নেওয়ার চেষ্টা করবেন যে, কিভাবে আপনি আপনার প্রোডাক্ট এ পরিবর্তন আনলে তা গ্রাহকদের জন্য আরো উপকারী হয়। আপনার এরকম আচরণ গ্রাহকদের মনে বিশ্বাস স্থাপন করতে সাহায্য করবে।

এবং আপনার কাছ থেকে প্রোডাক্ট কিনে তার ও স্বাচ্ছন্দ বোধ করবে। তারা সহজেই তাদের মনের অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে পারবে এবং এর মাধ্যমে আপনি আপনার গ্রাহকেরা কেমন প্রোডাক্ট পছন্দ করছে সে সম্পর্কে ধারণা পাবেন। প্রোডাক্টের মান উন্নয়ন করতে পারবেন এবং প্রোডাক্ট এর মান উন্নয়ন করার ফলে অবশ্যই আপনার বিক্রয় আরো বেশি বৃদ্ধি পাবে।

১৩. প্রোফাইল এনালাইসিস করুন

ইনস্টাগ্রামের যত ভিতর ঢুকা যায় ততো ভিতরেই আবিষ্কার করা যায় একাউন্ট এনালাইসিস এর ডিফারেন্ট অপশন। এরকমই একটি অপশন হলো " ইনস্টাগ্রাম ইন্সাইটস"।

ইন্সাইটস অপশন থেকে আপনি জানতে পারবেন যে দিনের কোন সময় আপনার প্রোফাইলে সবচেয়ে বেশি মানুষের আনাগোনা থাকে, আপনার প্রোফাইলে কেমন বয়স বা লিঙ্গের মানুষ সবচেয়ে বেশি আসছে, আপনার কোন পোস্ট গুলো মানুষের কাছ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি পৌঁছাচ্ছে এরকম নানা টুকিটাকি জিনিস। এই ইন্সাইট অনুযায়ী কনটেন্ট আপলোড এর জন্য একটি শিডিউল সেট করে ফেললে অনেক মানুষ পর্যন্ত আপনার কনটেন্ট পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে।

১৪. নিজের তৈরি হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন

আপনার কনটেন্টকে অনেক বেশি ডিফারেন্ট করার জন্য আপনি চাইলে নিজের তৈরি হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করতে পারেন। এই হ্যাশট্যাগ গুলো আপনি আপনার কনটেন্ট এর ফাস্ট কমেন্ট এ রেখে দিতে পারেন। এই হ্যাশট্যাগ জনপ্রিয়তা পাওয়ার মাধ্যমে আপনার কনটেন্ট ও অনেক বেশি জনপ্রিয়তা লাভ করবে।

১৫. সমজাতীয় ব্যবসার বা ব্যক্তিদের সাথে ভালো সম্পর্ক নিশ্চিত করুন

আপনি যে ধরনের কনটেন্ট আপলোড করছেন বা প্রোডাক্ট বিক্রয় করছেন সেই একই বা সমজাতীয় প্রোডাক্ট বা কনটেন্ট যদি অন্য কেউ বানিয়ে থাকেন তাহলে তার সাথে বিভিন্ন প্রোগ্রাম এ বিভিন্ন ট্রেন্ড ফলো করে কোলাবোরেশান করতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনার গ্রাহক এনগেজমেন্ট অনেকগুন বৃদ্ধি পাবে।

১৬. আপনার কাস্টমারদের তোলা ছবি আপনার প্রোফাইলে আপলোড করুন

আপনার কাস্টমারদের তোলা ছবি আপনার প্রোফাইলে আপলোড করুন,যাকে বলে "ফিচার পিকচার" আপনার গ্রাহকের মতামত নেওয়ার জন্য এটিও অন্যতম একটি ভালো মাধ্যম এবং এর পাশাপাশি গ্রাহকরা আপনার প্রোডাক্ট কেমন পছন্দ করছেন সে সম্পর্কেও একটি পরিষ্কার ধারণা পাওয়া সম্ভব হয়।

সর্বোপরি বলা যায় যে যেহেতু ইন্সটাগ্রাম একটি অন্যতম জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া সুতরাং এখানে জায়গা বানানো টাও খানিক কঠিন। শুধুমাত্র নিয়মানুবর্তিতা, ডেডিকেশন এবং কাজের প্রতি আগ্রহই পারবে ইন্সটাগ্রাম সোশ্যাল মিডিয়ায় জনপ্রিয়তা লাভ করে সফলতা নিশ্চিত করতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *