স্কিন কেয়ার

কমলার খোসার ফেসপ্যাক বানানোর নিয়ম

5/5 - (21 votes)

ফল শুধু শরীরকে অভ্যন্তরীণ সুস্থ রাখতেই কাজ করে না, ত্বকের জন্যও উপকারী প্রমাণিত হয়েছে। তেমনই একটি ফল হল কমলা, যেটি শুধু মলদ্বার নয়, ত্বকের জন্যও উপকারী। এই কারণেই মানুষ কমলার পাশাপাশি এর খোসা ফেসপ্যাক হিসেবে ব্যবহার করে। আপনিও যদি কমলার ফেস প্যাকের সুবিধা নিতে চান, তাহলে এই পোস্টটি বিশেষভাবে আপনার জন্য। এখানে আমরা কমলার খোসার ফেসপ্যাকের উপকারিতার পাশাপাশি কিভাবে এই ফেসপ্যাক গুলো বানাবেন, কমলা ও কমলার খোসা কিভাবে মুখে লাগাতে হবে এইসব বিষয়ে পূর্ণাংগ গাইডলাইন দিয়েছি।

আসুন প্রথমে জেনে নেওয়া যাক কমলার ফেসপ্যাক লাগানোর উপকারিতাগুলো।

Contents

কমলার খোসার ফেসপ্যাকের উপকারিতা

ত্বকের জন্য কমলার খোসার উপকারিতা নানাভাবে দেখা যায়। নিচে আমরা পর্যায়ক্রমে ত্বকে কমলা ও কমলার খোসার ফেসপ্যাক লাগানোর উপকারিতার কথা বলছি,

১। কমলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ত্বককে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস থেকে রক্ষা করতে পারে। অক্সিডেটিভ স্ট্রেস ত্বকে বার্ধক্যের লক্ষণ দেখা দিতে পারে।

২। কমলার খোসার ফেসপ্যাক ত্বককে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে।

৩। কমলা ব্যবহার করলে ত্বক উজ্জ্বল হয়।

৪। কমলার ব্যবহার ব্রণ থেকে সুরক্ষা হিসাবে কাজ করতে পারে।

৫। মুখের দাগ দূর করতেও কমলা উপকারী প্রমাণিত হয়েছে।

৬। কমলা ব্রণ প্রতিরোধ ও কমাতেও কার্যকর।

৭। কমলালেবুর প্রাকৃতিক ব্লিচিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ত্বকের রং পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

৮। এটিতে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল প্রভাবও রয়েছে। এই প্রভাবগুলি ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের সংক্রমণ থেকে ত্বককে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

এবার, আমরা কীভাবে কমলা এবং কমলার খোসার গুঁড়া ফেসপ্যাক তৈরি করবেন তা বলছি।
কমলার ফেসপ্যাকের উপকারিতা কি জানেন। একই সময়ে, আপনি যদি ভাবছেন কিভাবে মুখে কমলা এবং কমলার খোসা লাগাবেন, তবে আসুন এখানে এই প্রশ্নের উত্তরও দেওয়া যাক:

পেঁপে এবং কমলা ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

একটি কমলা
১ কাপ কাটা পেঁপে

কিভাবে ব্যবহার করবেন :

প্রথমে কমলার খোসা ছাড়িয়ে নিন।
তারপর পেঁপের সাথে এই খোসাকে ব্লেন্ডারে পিষে মুখে ও ঘাড়ে লাগান।
15 থেকে 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন, তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
সপ্তাহে একবার এই ফেসপ্যাক লাগান।

কতটা উপকারী :

কমলার খোসার ফেসপ্যাক ত্বকে লাগানোর উপকারিতা আমরা আগেই বলেছি। সেই সঙ্গে যদি পেঁপে যোগ করা হয়, তাহলে তা আরও বেশি উপকারী হতে পারে। আসলে ত্বকের জন্য পেঁপের উপকারিতা অনেক। এটি ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করার পাশাপাশি বলিরেখা কমাতে সহায়ক হতে পারে। এছাড়া ফেসপ্যাক হিসেবে পেঁপে ব্যবহার করলে ডার্ক সার্কেল কমাতেও সাহায্য করে। ট্যান এবং ব্রণ থেকে মুক্তি পেতে এর উপকারিতাও দেখা যায়।

কলা এবং কমলার ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

একটি কলা
একটি কমলা

কিভাবে ব্যবহার করে :

কলা এবং কমলার পাল্প মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
তারপর এই মিশ্রণটি মুখে 15 থেকে 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাক সপ্তাহে একবার বা দুইবার লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী :

কমলা ও কলার ফেসপ্যাকের উপকারিতা অনেক। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে কলা অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল (ব্যাকটেরিয়াল ফাইটিং), অ্যান্টি-ব্রণ (ব্রণের বৃদ্ধি রোধ করে) এবং অ্যান্টি-এজিং (ত্বকের বার্ধক্যের লক্ষণ কমাতে) প্রদর্শন করতে পারে। এছাড়াও, এটি একটি চমৎকার এক্সফোলিয়েটর হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে (ত্বক থেকে মৃত কোষ অপসারণ)। ত্বকের উন্নতিতেও কলার উপকারিতা দেখা যায় (2)। সেই সঙ্গে ত্বকের জন্য কমলার উপকারিতা আমরা আগেই বলেছি।

নিম এবং কমলা ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

এক চা চামচ নিম পাতার পেস্ট
দুই টেবিল চামচ কমলার পাল্প

কিভাবে ব্যবহার করে :

নিমের পেস্ট এবং কমলার পাল্প মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মুখে ও ঘাড়ে লাগান।
এটি 15 থেকে 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপরে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাক সপ্তাহে একবার লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী:

ত্বকের জন্য নিমের উপকারিতা অনেক। এ নিয়ে গবেষণায় দেখা যায় নিমের ব্যবহার ব্রণের পাশাপাশি তৈলাক্ত ত্বকের জন্যও উপকারী হতে পারে। নিমের রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি (প্রদাহ কমানো) এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল (ব্যাকটেরিয়া বিরোধী) বৈশিষ্ট্য। গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে নিম এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যের কারণে ব্রণ-বিরোধী প্রভাব প্রদর্শন করতে পারে।

একই সময়ে, এতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য ব্রণের প্রদাহ কমাতে সাহায্য করতে পারে (1)। সেই সঙ্গে ত্বকের জন্য কমলার উপকারিতাও বলেছি। এর ভিত্তিতে অনুমান করা যায় যে কমলার সঙ্গে নিমের ফেসপ্যাকের উপকারিতা অনেক।

বেসন এবং কমলা ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

দুই টেবিল চামচ কমলার রস
এক চামচ বেসন

কিভাবে ব্যবহার করবেন :

বেসনের মধ্যে কমলার রস মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
এবার মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে দিন।
শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাক সপ্তাহে দুইবার লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী:

কোন সন্দেহ নেই যে মুখে বেসন আর কমলার ফেসপ্যাক লাগানোর উপকারিতা অনেক। বেসন ত্বকের টনিক হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। বেসন ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেল অপসারণ করতে এবং এক্সফোলিয়েট (ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে) সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও, বেসন একটি অ্যান্টি-পিম্পল এজেন্ট হিসাবেও পরিচিত। এছাড়াও এটি মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।

গ্রিন-টি এবং কমলা ফেস প্যাক

জিনিসপত্র :

চা চামচ সবুজ চা পাতা (শুকনো)
এক চামচ কমলার রস

কিভাবে ব্যবহার করে:

প্রথমে সবুজ চা পাতা এবং কমলার পাল্প পিষে পেস্ট তৈরি করুন।
তারপর মুখে লাগান।
এটি 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং এটি শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাকটি সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

কতটা উপকারী:

কমলা ও সবুজ চায়ের ফেসপ্যাকও ত্বকের জন্য উপকারী হতে পারে। ত্বকের বার্ধক্যের প্রভাব কমাতে গ্রিন টি ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়াও, গ্রিন টি এর উপকারিতাগুলি প্রদাহের সমস্যা কমাতে এবং ত্বকে একটি স্বাস্থ্যকর আভা প্রদান করতে দেখা যায়। একই সাথে, আমরা ইতিমধ্যে আরেকটি পোস্টে কমলার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত বলেছি।

চন্দন এবং কমলা ফেস প্যাক

জিনিসপত্র :

এক চামচ কমলার রস
এক চা চামচ চন্দন গুঁড়া
দুই ফোঁটা লেবুর রস
দুই চামচ গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করে:

এই সব উপকরণ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
তারপর এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট রেখে দিন।
শুকানোর পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
সপ্তাহে দুবার এই ফেসপ্যাক লাগান।

কতটা উপকারী:

আমরা উল্লেখ করেছি, কমলা প্রাকৃতিক ব্লিচ হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। মুখের উজ্জ্বলতা আনতে কমলা অনেকটা কার্যকরী হতে পারে। একইভাবে ফেসপ্যাক হিসেবে চন্দনের ব্যবহারও ত্বকের জন্য উপকারী বলে বিবেচিত হতে পারে। আসলে, চন্দনের ব্যবহার ত্বকের অ্যালার্জি নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে।

একই সময়ে, এটির শীতল এবং প্রশান্তিদায়ক প্রভাব রয়েছে, যা ত্বকের জ্বালাকে শান্ত করতে সহায়ক হতে পারে। এছাড়াও চন্দন কাঠ দূষণ থেকে রক্ষা করে ত্বককে উজ্জ্বল ও স্বাস্থ্যকর রাখতেও সহায়ক প্রমাণিত হয়েছে। শুধু তাই নয়, মুখের দাগ ও ব্রণ দূর করতেও চন্দনের উপকারিতা দেখা যায়।

নারকেল তেল এবং কমলা ফেস প্যাক

জিনিসপত্র :

এক চা চামচ নারকেল তেল
এক চামচ কমলার রস

কিভাবে ব্যবহার করে:

একটি পাত্রে নারকেল তেল এবং কমলার পাল্প মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন এবং এই পেস্টটি আপনার মুখে লাগান।
30 মিনিটের জন্য এটি ছেড়ে দিন।
তারপর তুলা ভিজিয়ে মুখ হালকা করে মুছে নিন।
এই ফেসপ্যাক সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী:

ত্বকের জন্য নারকেল তেলের উপকারিতা অনেক। NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, নারকেল তেলে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল (ব্যাকটেরিয়া বিরোধী) এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি (প্রদাহ হ্রাস) বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এছাড়াও, এটি ত্বককে ময়শ্চারাইজ করতেও ব্যবহার করা যেতে পারে। শুধু তাই নয়, নারকেল তেলের ব্যবহার ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে।

হলুদ এবং কমলা ফেস প্যাক

জিনিসপত্র :

এক চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়া
এক চিমটি হলুদ
দুই চামচ গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করে:

একটি পাত্রে কমলার খোসার গুঁড়া এবং হলুদ মিশিয়ে তাতে গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
এবার এই পেস্টটি মুখে এবং ঘাড়ে লাগান এবং 10 থেকে 15 মিনিটের জন্য শুকাতে দিন।
এর পর মুখ ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাক সপ্তাহে দুইবার লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী:

কয়েক বছর ধরে ত্বকের জন্য হলুদ ব্যবহার হয়ে আসছে। এটি ত্বককে তরুণ রাখার পাশাপাশি নতুন আভা দেওয়ার জন্য কার্যকর বলে বিবেচিত হতে পারে। এছাড়াও, হলুদের উপকারিতা মুখের অতিরিক্ত তেল দূর করতে, ব্রণ ও বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে। একই সময়ে, কমলার খোসার পাউডার ফেসপ্যাক কীভাবে উপকারী, আমরা এই পোস্টে আগেই বলেছি।

মুলতানি মাটি এবং কমলার খোসার ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

এক চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়া
এক চামচ মুলতানি মাটি
দুই থেকে তিন চামচ গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করে:

একটি পাত্রে মুলতানি মাটি, কমলার খোসার গুঁড়া এবং গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
এই ফেসপ্যাকটি মুখে এবং ঘাড়ে লাগান এবং 20-25 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
তারপর দুই-তিন মিনিট পানির সাহায্যে মুখ স্ক্রাব করে তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন।
সপ্তাহে একবার এই ফেসপ্যাক লাগান।

কতটা উপকারী :

মুখের জন্য মুলতানি মাটির ব্যবহার খুব উপকারী। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে মুলতানি মাটি মুখের খোলা ছিদ্রের আকার কমানোর পাশাপাশি ব্ল্যাকহেডস এবং হোয়াইটহেডস দূর করতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও, ত্বক পরিষ্কার এবং জ্বালাপোড়ার জন্য এর উপকারিতা দেখা যায়।

শুধু তাই নয়, মুখের রঙের উন্নতির পাশাপাশি মুলতানি মাটি ব্রণ থেকে রক্ষা করতেও সহায়ক। গোলাপ জল ত্বককে হাইড্রেটিং এবং ময়শ্চারাইজ করতে সহায়ক।

ওটস এবং কমলার খোসার ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

2 চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়া
এক চা চামচ ওটস (পাউডার)
প্রয়োজন অনুযায়ী জল

কিভাবে ব্যবহার করে:

একটি পাত্রে কমলার খোসার গুঁড়া এবং ওটস মিশিয়ে নিন। তারপর এতে পানি মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। মিশ্রণটি যেন খুব বেশি ঘন বা পাতলা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।
এবার এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।
সপ্তাহে তিনবার এই ফেসপ্যাক লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী :

কমলার খোসার গুড়া ও ওটসের ফেসপ্যাক ব্যবহার করলেও ত্বকের উপকার হয় নানাভাবে। একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, ত্বক পরিষ্কার করতে ওটসের ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। কারণ ওটসের ত্বক পরিষ্কার করার বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

এছাড়াও, ওটসের ময়েশ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্যও রয়েছে, যা ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করতে পারে। এ কারণেই কমলার পাশাপাশি ওটস ব্যবহার ত্বকের জন্য উপকারী বলে বিবেচিত হয়েছে।

টমেটো এবং কমলার খোসার গুড়ার ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

অর্ধেক টমেটো পাল্প
এক চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়া
এক চামচ গোলাপ জল

কিভাবে ব্যবহার করে:

তিনটি উপাদান মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
এই প্যাকটি মুখে লাগিয়ে 10 মিনিট থাকতে দিন এবং তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাক সপ্তাহে দুইবার লাগাতে পারেন।

কতটা উপকারী :

আসলে মুখের জন্য টমেটো ফেস প্যাকের উপকারিতা অনেক। এটি যদি কমলার সাথে ব্যবহার করা হয়, তবে এটি আরও কার্যকরী প্রমাণিত। আসলে টমেটোতে লাইকোপিন থাকে, যা ক্লিনজার হিসেবে কাজ করতে পারে। একটি গবেষণা অনুসারে, টমেটোর ব্যবহার ত্বক পরিষ্কার করতে এবং উজ্জ্বল করতে সহায়ক। শুধু তাই নয়, টমেটো ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ, যা রোদে পোড়ার প্রভাব কমাতে সাহায্য করে।

অ্যালোভেরা এবং কমলার খোসার ফেসপ্যাক

জিনিসপত্র :

দুই চামচ অ্যালোভেরা জেল
এক চা চামচ কমলার খোসার গুঁড়া
অর্ধেক লেবু

কিভাবে ব্যবহার করে :

অ্যালোভেরা জেল এবং কমলার খোসার গুঁড়া ভালো করে মিশিয়ে নিন।
তারপর মিশ্রণটিতে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ছেঁকে নিন এবং পেস্ট না হওয়া পর্যন্ত মেশান।
এবার এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিন।
শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
এই ফেসপ্যাকটি সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

কতটা উপকারী :

ফেসপ্যাক হিসেবে অ্যালোভেরার উপকারিতা অনেক। অ্যালোভেরা অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ, যা ত্বককে ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এছাড়াও অ্যালোভেরা ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে এবং ব্রণ কমাতেও সাহায্য করতে পারে। শুধু তাই নয়, অ্যালোভেরাতে উপস্থিত জিঙ্ক একটি অ্যাস্ট্রিনজেন্ট (ত্বক টানটানকারী) হিসাবে কাজ করতে পারে এবং ছিদ্রগুলিকে শক্ত করতে সাহায্য করে।

তো বন্ধুরা, এই আর্টিকেলটি পড়ার পর আপনারা নিশ্চয়ই ভালো করে বুঝেছেন কিভাবে কমলার পাশাপাশি কমলার খোসা মুখে লাগাতে হয়। এছাড়াও, আপনি অবশ্যই মুখের জন্য কমলার ফেস প্যাকের উপকারিতা সম্পর্কে জেনেছেন। এমন পরিস্থিতিতে, আপনি যদি পার্লারে যাওয়া এড়াতে চান, তাহলে এখানে উল্লেখিত কমলার ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আমরা আশা করি প্রবন্ধে উল্লিখিত কমলার খোসার ফেসপ্যাকটি আপনার ত্বককে সুন্দর ও তারুণ্য দিতে সক্ষম।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য:

কমলা কি উজ্জ্বল ত্বকের জন্য ভালো?

হ্যাঁ, কমলার ব্যবহার ত্বকের উন্নতিতে সহায়ক।

কমলার খোসা মুখে লাগানো কি ভালো?

হ্যাঁ, কমলার খোসা মুখে লাগালে ভালো হতে পারে। ত্বকের উন্নতির পাশাপাশি, এটি ব্রণ এবং বার্ধক্য থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

কমলার খোসা কি ব্ল্যাকহেডস দূর করে?

কমলার খোসা ব্ল্যাকহেডস দূর করে কিনা তা বলা একটু কঠিন। এ সম্পর্কে সঠিক বৈজ্ঞানিক প্রমাণের অভাব রয়েছে।

আমরা কি প্রতিদিন মুখে কমলার রস লাগাতে পারি?

না, কোনো কিছুর অতিরিক্ত ব্যবহার ক্ষতির কারণ হতে পারে। তাই সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার মুখে কমলা ব্যবহার করতে পারেন।

আমার ত্বকে অ্যালার্জি থাকলে আমি কি কমলার ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে পারি?

এই ফেসপ্যাকটি মুখে লাগানোর আগে একবার প্যাচ টেস্ট করে নেওয়া ভালো। কোনো ধরনের ক্ষতিকর প্রভাব না থাকলে মুখে লাগাতে পারেন।

কমলালেবুর ফেসপ্যাক বাসায় বানানো কি ভালো নাকি বাজার থেকে কিনতে পারেন?

এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণভাবে আপনার নিজের। আপনার হাতে পর্যাপ্ত সময় থাকলে, আপনি ঘরে বসেই তৈরি করতে পারেন কমলার ফেসপ্যাক এবং আপনার ত্বকের টোন অনুযায়ী অন্যান্য উপাদান মেশাতে পারেন। এছাড়াও, ঘরে তৈরি ফেস প্যাকগুলি তাজা এবং আরও ভাল ফলাফল দিতে পারে। হ্যাঁ, সময় কম থাকলে বাজার থেকে কিনতে পারেন এই ফেসপ্যাকটি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button