চুল স্ট্রেইট করার নিয়ম

চুল স্ট্রেইট করার নিয়ম সম্পর্কে আজকে আমি যে ৫ টি সহজ উপায় নিয়ে আলোচনা করবো এগুলো জানলে আপনি খুব সহজে ঘরে বসেই সুন্দর এবং স্ট্রেইট চুলের অধিকারী হতে পারবেন।

সুন্দর সিল্কি নরম স্ট্রেইট চুল আমরা সকলেই চাই। কিন্তু সবাই তো নরম, স্ট্রেইট এবং সিল্কি চুলের অধিকারী হন না। আমাদের স্বপ্নের নায়িকাদের মত সেক্সি স্ট্রেইট চুল পাওয়ার ইচ্ছা তো আমাদের অনেক দিনের। আর অন্যদিকে পার্লারে গিয়ে চুল সোজা করানোর কথা ভাবলে খরচের জন্য আর হয়ে ওঠে না। তাছাড়া সাধারণত আপনি যখন পার্লারে গিয়ে চুল স্ট্রেইট করার কথা ভাববেন তখন এর খরচের সাথে রয়েছে অনেক হ্যাপাও। তাছাড়া আপনাদের একটা জিনিস জেনে রাখা ভালো সেটা হল পার্লারে গিয়ে চুল স্ট্রেইট করার টা মোটেও ভালো নয়।

এতে যেমন টাকা অনেক খরচ হয় তেমনি চুলেরও মারাত্মক ক্ষতিসাধন হয়ে থাকে। অন্যদিকে কোন অনুষ্ঠানে বা বিয়ে বাড়িতে যেতে হলে আপনি তো আর কোকড়ানো চুল নিয়ে যেতে পারবেন না তাহলে কি করবেন? তাই আজকে আমি আপনাদের বলবো কোকড়ানো চুল স্ট্রেইট করার পাঁচটি সহজ নিয়ম, তাও আবার ঘরে বসেই। তাহলে দেরি না করে চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে আপনারা কোঁকড়ানো চুল স্ট্রেইট করবেন-

কোঁকড়ানো চুল স্ট্রেইট করার নিয়ম

(১)হট অয়েল ট্রিটমেন্ট করা 

আপনারাতো কমবেশি সবাই জানেন  চুলে হট অয়েল ম্যাসাজ এর গুরুত্ব সম্পর্কে। আর সাধারনত আপনি যদি চুল সোজা করতে চান তাহলে কিন্তু হট অয়েল একটি কার্যকারী উপায় হতে পারে আপনার জন্য। তাহলে কিভাবে করবেন জেনে নিন?

উপকরণ 

নারকেল তেল, অলিভ অয়েল, তিলের বা বাদামের তেল, বা যেকোনো মাথায় দেওয়া ভালো তেল ব্যবহার করতে পারেন। 

চুলে লাগানোর  পদ্ধতি 

আপনাকে প্রথমে তেল হালকা  গরম করে মাথায় লাগাতে হবে, তারপর ১৫ থেকে ২০ মিনিট ভালোভাবে ম্যাসাজ করতে হবে। তারপর চুল ভালো করে চিরুনি দিয়ে আঁচড়ে স্টিম দিয়ে গরম করে তোয়ালে দিয়ে মাথা অন্তত ৩০ থেকে ৪০ মিনিট ঢেকে রাখতে হবে। তারপর হালকা শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নেওয়ার পর আবার চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়াতে হবে। বুঝতে পারবেন এর উপকারিতা। আপনার কোকড়ানো চুল স্ট্রেইট করার এটি হতে পারে সবচেয়ে কার্যকর একটি উপায়।

চুলের যত্নে তিসির তেলের কথা আমরা সবাই জানি, আপনি যদি না জানেন তাহলে নিচের পোস্তগুলো থেকে জেনে নিতে পারেন।

(২)দুধ 

শুনে অবাক হলেন। দুধ দিয়ে চুল সোজা করা যাবে। এটা কি সম্ভব। হ্যাঁ এটা সম্ভব। দুধ হতে পারে আপনার চুলকে  ময়েশ্চারাইজ করে সোজা করার দারুণ একটি উপায়। 

উপকরণ 

হাফ কাপ জল, হাফ কাপ দুধ

চুলে যেভাবে লাগাবেন 

আপনাকে একটি স্প্রে বোতলে দুধ এবং জল নিয়ে সেটা ভালো করে মিক্স করে নিতে হবে। তারপর মিক্স করা হয়ে গেলে আপনি এটি চুলে ভালো করে স্প্রে করে নিন।তবে স্প্রে করার আগে আপনাকে একটা জিনিস দেখতে হবে সেটি হচ্ছে চুলে যেন জট না থাকে।স্প্রে করা হয়ে গেলে চুল ভালো করে আঁচড়ে নিতে হবে। তারপর চুলে এইভাবে ৩০ মিনিট রেখে দিন এবং শ্যাম্পু করে ফেলুন। আপনি যদি এই মিশ্রণটি সপ্তাহে তিনবার ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনি এর উপকারিতা নিজে থেকেই বুঝতে পারবেন।

 (৩)নারকেল দুধ ব্যবহার করা 

নারকেলের দুধ আপনার চুল স্ট্রেট করার জন্য খুবই কার্যকর একটি উপাদান। নারকেলের দুধ আপনার চুলকে করে ময়েশ্চারাইজ তোলে তাছাড়া এই উপাদানটি আপনার চুলকে প্রাকৃতিক ভাবে স্মুদ এবং সিল্কি করে তোলে। তাছাড়া নারকেল দুধের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল,এন্টিফাঙ্গাল ও অ্যান্টি -ভাইরাল গুণ আপনার  স্ক্যাল্পকেও ইনফেকশনের হাত থেকে করতে দারুণভাবে কাজ করে থাকে। 

উপকরণ 

এক কাপ ফ্রেশ দুধ এবং একটি পাতিলেবু 

পদ্ধতি 

আপনি প্রথমে একটি কাচের বোতল নিন এবং এতে নারকেল দুধ এবং পাতিলেবু ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর মেশানো হয়ে গেলে পাত্রটিকে ঘন্টা খানেকের মতো ফ্রিজে রেখে দিন। তারপর খেয়াল করলে দেখতে পারবেন ওর উপর একটি ক্রিমি আস্তরণ তৈরি হচ্ছে। এবার ওই ক্রিমটি আপনার মাথায় ভালো করে ম্যাসাজ করে লাগান এবং এটি ২০ মিনিট রেখে দিন। তারপর আপনি আপনার মাথা কে সাওয়ার ক্যাপ দিয়ে ঢেকে ফেলুন যাতে আপনার চুল  ময়েশ্চারাইজ থাকে। এইভাবে ৩০ মিনিট রেখে তারপর আপনি হালকা শ্যাম্পু করে মাথা ধুয়ে ফেলুন। তারপর চুল ভিজে থাকা অবস্থায় আঁচড়াতে  থাকুন এবং চুল শুকাতে দিন। কিছুদিন পর এর উপকারিতা দেখতে পারবে। 

(৪)ডিম ও অলিভ অয়েলের ব্যবহার 

ডিমের উপকারিতার কথা তো জানেন চুলের যত্ন। আপনি চাইলে চুল স্ট্রেট করার ক্ষেত্রেও ডিমের ব্যবহার করতে পারেন। তবে এই ক্ষেত্রে আপনাকে ডিমের সাথে অলিভ অয়েল যুক্ত করতে হবে। আর কোঁকড়ানো চুলকে সোজা করতে এর জুড়ি নেই বললেই চলে। ডিম আপনার চুলকে মজবুত ও শক্তিশালী করবে এবং অলিভ অয়েল চুলকে ময়েশ্চারাইজ রাখবে। আর এই দুইটি উপাদান আপনি যদি একসাথে ব্যবহার করতে পারেন তাহলে এটা আপনার চুলকে স্ট্রেট রাখতে সাহায্য করবে।

উপকরণ 

২ টা ডিম,৪ চামচ অলিভ অয়েল 

ব্যবহার করার পদ্ধতি 

প্রথমে আপনাকে ডিম ভালোভাবে ফাটিয়ে নিয়ে তাতে অলিভ অয়েল মেশাতে হবে। তারপর মেশানো হয়ে গেলে আপনার মাথায় ওটা ভালো করে মাখিয়ে চিরুনি দিয়ে আস্তে আস্তে আস্তে আঁচড়ে নিন। তারপর শাওয়ার ক্যাপ পড়েন মিশ্রণটি আপনার মাথায় ৪০ মিনিট রেখে দিন এবং তারপর হালকা শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। তারপর নিজেই এর উপকারটা আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার চুল কতটা স্ট্রেট হল। 

(৫)অ্যালোভেরা 

চুলের যত্নে অ্যালোভেরা  চেয়ে ভাল উপাদান হয়তো আর নেই। আর সেটা হয়তো আপনাদেরও জানা। অ্যালোভেরা তে থাকা অ্যানাইজম চুলের বৃদ্ধি ঘটাতে সাহায্য করে থাকে। তাছাড়া অ্যালোভেরা সাধারণত চুলকে নরম সিল্কি এবং সুন্দর রাখতে সাহায্য করে থাকে। আর অ্যালোভেরা চুলে স্ট্রেট  করতেও কার্যকারী ভূমিকা পালন করতে পারে।

উপকরণ 

হাফ কাপ অ্যালোভেরার রস, হাফ কাপ অলিভ অয়েল 

পদ্ধতি 

প্রথমে একটি পাত্রে হাফ কাপ অ্যালোভেরার রস এবং হাফ কাপ অলিভ অয়েল নিন।তারপর দুইটি উপাদান একসাথে খুব সুন্দর করে মিশ্রন করে নিন। মিক্স করা হয়ে গেলে মাথার চুলে এবং স্ক্যাল্পে এই মিশ্রণটি ভালভাবে ম্যাসাজ করে নিন।তারপর শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে মাথা ঢেকে ফেলুন এবং ঘন্টা দুয়েক মতো রেখে দিন।তারপর হালকা শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং ভেজা অবস্থায় আস্তে আস্তে চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়াতে থাকুন। তারপর দেখতে থাকুন অ্যালোভেরার জাদু।

নিচের পোস্টগুলো আপনার উপকারে আসবে, দেখে নিন

পরিশেষে, চুল স্ট্রেইট করার নিয়ম সম্পর্কে আপনাদেরকে যেসব ঘরোয়া পদ্ধতির কথা বলা হলো চুল স্ট্রেইট করার জন্য আপনি এটা এক দিন করলে ফল পাবেন না আপনাকে এটা নিয়মিত করে যেতে হবে। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার করে আপনি মাস খানেক ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে বুঝতে পারবেন এর ফলাফল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *