স্কিন কেয়ার

চোখের নিচের কালো দাগ দূর করার উপায়

বেশিরভাগ লোকেরা মনে করে যে একটি ভাল রাতের ঘুম চোখের নীচের কালো দাগ দূর করতে পারে। কিন্তু সত্য হল ডার্ক সার্কেলের আরও অনেক কারণ থাকতে পারে। কেন তারা গঠিত হয় এবং কিভাবে আপনি তাদের প্রতিরোধ বা চিকিৎসা করতে পারেন তা বোঝার জন্য আসুন এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই।

ডার্ক সার্কেল কি?

ডার্ক সার্কেল বা পেরিওরবিটাল ডার্ক সার্কেল একটি ত্বকের উদ্বেগ যা দেখা দেয় যখন আপনার চোখের চারপাশে সূক্ষ্ম পাতলা ত্বকের মধ্য দিয়ে রক্তনালীগুলি দেখা যায়। এটি আপনার মুখকে ক্লান্ত এবং নিস্তেজ দেখাতে পারে। কিন্তু, তারা অগত্যা স্থায়ী হয় না। ডার্ক সার্কেলের কারণ চিহ্নিত করা তাদের কার্যকরভাবে চিকিৎসা করতে সাহায্য করতে পারে।
আপনার চোখের নিচে ডার্ক সার্কেলের কারণ কী?

এলার্জিঃ এলার্জি ত্বকে চুলকানির কারণ হয়। আপনার চোখের চারপাশের ত্বকে ক্রমাগত ঘষার ফলে ডার্ক সার্কেল হতে পারে।

ওষুধঃ রক্তনালীগুলিকে প্রসারিত করে এমন যেকোনো ওষুধ আপনার চোখের নিচে কালো দাগ তৈরি করতে পারে। যেহেতু আপনার চোখের চারপাশের ত্বক সূক্ষ্ম, তাই এটি সহজেই ত্বকের মধ্য দিয়ে বর্ধিত রক্ত ​​প্রবাহ দেখাতে পারে।

রক্তশূন্যতাঃ আপনার খাদ্যতালিকায় আয়রনের অভাব আপনাকে রক্তশূন্য করে তোলে এবং অন্ধকার বৃত্তের আকারে দেখা দিতে পারে। গর্ভাবস্থা এবং ঋতুস্রাব কম মাত্রায় আয়রনের অভাবের কারণ হতে পারে এবং অন্তর্নিহিত শিরাগুলি আরও বিশিষ্ট হয়ে উঠতে পারে।

বার্ধক্যঃ প্রাকৃতিক বার্ধক্য প্রক্রিয়ার সাথে, লোকেরা চোখের নীচের ত্বকে কোলাজেন হারাতে থাকে। মুখের অভিব্যক্তির মতো ক্রিয়াকলাপে অত্যধিক ব্যবহারের কারণে এই ত্বকটি অন্যান্য ত্বকের তুলনায় পাতলা এবং দ্রুত বয়সী হয়।

সূর্যের এক্সপোজারঃ সূর্য থেকে আসা UV আলো মেলানিন (বাদামী ত্বকের রঙ্গক) উৎপাদন শুরু করে যা আপনার চোখের নীচের ত্বককে আরও কালো করে তোলে।

পেরিওরবিটাল হাইপারপিগমেন্টেশনঃ এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে চোখের নীচে আরও মেলানিন উৎপাদিত হয়, তাদের একটি গাঢ় চেহারা দেয়।

স্ট্রেস/ক্লান্তিঃ ঘুমের অভাব বা চাপের কারণে ত্বক ফ্যাকাশে হতে পারে , চোখের চারপাশের ত্বক কালো হয়ে যায়। নীচের রক্ত ​​আরও নীল বা গাঢ় দেখায়।

সিগারেট ধূমপান, অ্যালকোহল এবং ক্যাফেইনঃ সিগারেটের ধোঁয়া, অ্যালকোহল এবং ক্যাফেইনের বিষাক্ত পদার্থগুলি আপনার চোখের চারপাশের ত্বকের সূক্ষ্ম গঠনের ক্ষতি করে, তাদের গাঢ় করে তোলে।

ডিহাইড্রেশনঃ শরীরে তরলের অভাব এর কারনে আপনার চোখের নীচের রক্তনালীগুলি আরও বিশিষ্ট হতে পারে। ফলে আপনার চোখের চারপাশে কালো দাগ পড়ে।

আপনার জেনেটিক মেকআপঃ কিছু মানুষের স্বাভাবিকভাবেই চোখের নিচে মেলানিন বেশি বা কম কোলাজেন তৈরি হয়। এই বিষয়গুলো চোখের নিচে কালো দাগ সৃষ্টি করে।

চোখের স্ট্রেনঃ দীর্ঘক্ষণ ধরে আপনার কম্পিউটারের স্ক্রীন এবং মোবাইলের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকলে কালো বৃত্ত তৈরি হয়। এই চাপের কারণে চোখের নীচে রক্ত ​​​​প্রবাহ বৃদ্ধি পায়, যার ফলে রক্ত ​​নীচে আরও নীল দেখায়।
কিভাবে ডার্ক সার্কেল দূর করবেন?

টপিকাল ক্রিমঃ স্কিন লাইটেনিং ক্রিম চোখের নিচের হাইপারপিগমেন্টেশনের চিকিৎসায় সাহায্য করে। আপনার ডাক্তার নিয়াসিনামাইড, আলফা-আরবুটিন , অ্যাজেলেইক অ্যাসিড, হাইড্রোকুইনোন, কোজিক অ্যাসিড , লিকোরিস বা গ্লাইকোলিক অ্যাসিডের মতো উপাদান ধারণ করে এমন ক্রিমগুলি লিখে দিতে পারেন । ভিটামিন ই এবং সি বা রেটিনয়েডের মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ধারণকারী টপিকাল ক্রিমগুলি যা কোলাজেন উৎপাদন বাড়ায় তা অন্ধকার বৃত্তে সাহায্য করতে পারে।

লেজারঃ লেজার থেরাপি ক্ষতিগ্রস্থ কোষগুলিকে বাষ্পীভূত করতে তাপ ব্যবহার করে। চোখের নিচের ত্বক হালকা করার পাশাপাশি লেজার কোলাজেন গঠনেও সাহায্য করে।

ফিলারঃ ডার্মাল ফিলার, যা হায়ালুরোনিক অ্যাসিড-ভিত্তিক, একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞ বা প্লাস্টিক সার্জন আপনার চোখের নিচে ইনজেকশন দিতে পারেন। হায়ালুরোনিক অ্যাসিড চোখের নিচে হাইড্রেশন বাড়ায় যার ফলে ডার্ক সার্কেল কম হয়।

চোখের নিচের কালো দাগ দূর করবেন কিভাবে?

কোল্ড কম্প্রেস

একটি ঠান্ডা সংকোচন রক্তনালীগুলিকে সংকুচিত করতে পারে এবং ডার্ক সার্কেল কমাতে পারে। একটি পরিষ্কার কাপড়ে কয়েকটি বরফের টুকরো মুড়ে প্রায় 20 মিনিটের জন্য আপনার চোখের নীচে রাখুন। আপনি একটি সাধারণ কাপড়ও বেছে নিতে পারেন।

আপনার মাথা উঁচু রাখুন

আপনার ঘুমের অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ। বালিশ দিয়ে আপনার মাথা উঁচু করুন যাতে আপনার চোখের নিচে তরল জমা না হয় যাতে সেগুলি অন্ধকার বা ফোলা না দেখায়।

কালো বা সবুজ চা

চায়ে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বা ক্যাফেইন আপনার চোখের নিচে রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করতে পারে। ২টি সবুজ বা কালো টি ব্যাগ পানিতে পাঁচ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। সরান এবং 20 মিনিটের জন্য একটি রেফ্রিজারেটরে রাখুন। এগুলি বের করে আপনার চোখের উপর 10 মিনিটের জন্য রাখুন এবং পরে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

শসা

মনে রাখবেন যে ফেসপ্যাকটি কাজ করার সময় একজন মুখের বিশেষজ্ঞ কীভাবে আপনার চোখে শসার টুকরো রাখেন? শসা প্রাকৃতিকভাবে নিরাময়কারী এবং শীতলকারী। এগুলো ডার্ক সার্কেলের উপস্থিতি কমাতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ শসার উপকারিতা ও অপকারিতা

বাদাম তেল এবং ভিটামিন ই

সমপরিমাণ বাদাম তেল এবং ভিটামিন ই মিশিয়ে ঘুমানোর সময় চোখের নিচে লাগান। মৃদু মালিশ রক্ত ​​সঞ্চালনে সাহায্য করে। পরের দিন সকালে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

প্রতিরোধ টিপস

ভালো ঘুমঃ ঘুমের অভাব, ক্লান্তি এবং মানসিক চাপের কারণে ডার্ক সার্কেল হতে পারে। ডার্ক সার্কেল প্রতিরোধ করতে প্রতি রাতে পর্যাপ্ত ঘুমান (6-8 ঘন্টা)।

সূর্য থেকে রক্ষা করুনঃ সূর্যের সাথে আপনার এক্সপোজার সীমিত করুন। যদি আপনাকে বাইরে যেতে হয়, সানগ্লাস ব্যবহার করুন এবং সানস্ক্রিন লাগান।

ধূমপান এবং অ্যালকোহল ত্যাগ করুনঃ ধূমপান এবং অ্যালকোহল বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে এবং আপনার চোখের চারপাশে কালো বৃত্ত তৈরি করে।

ডার্ক সার্কেল দূর করতে কী খাওয়া উচিত?

ভিটামিন কে রক্ত ​​জমাট বাঁধা এবং সঞ্চালনকে উদ্দীপিত করার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান । ভিটামিন কে যুক্ত খাবার যেমন ব্রকলি, সবুজ শাক, স্প্রাউট এবং পালং শাক আপনার চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করতে পারে। শসা, তরমুজ এবং টমেটোও একটি দুর্দান্ত পছন্দ কারণ এতে উচ্চ জলের উপাদান এবং কোলাজেন বৃদ্ধিকারী উপাদান রয়েছে।

বেশি পানি পান করা কি ডার্ক সার্কেল কমাতে পারে?

ডিহাইড্রেশনের কারণে ডার্ক সার্কেল দেখা দেয়। পানীয় জল এই ক্ষতি পূরণ করতে সাহায্য করতে পারে এবং আপনার শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের করে দিতেও সাহায্য করে।

কোন ভিটামিন ডার্ক সার্কেল কমায়?

ভিটামিন কে, এ, সি এবং ই ডার্ক সার্কেল কমাতে সাহায্য করে। ভিটামিন কে রক্ত ​​জমাট বাঁধতে সাহায্য করে এবং রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করে। ভিটামিন সি এবং ই হল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ফ্রি র‍্যাডিক্যালের বিরুদ্ধে লড়াই করে এবং কোলাজেন উৎপাদন বাড়ায়। ভিটামিন এ চোখের চারপাশে টিস্যু মেরামত করতে সাহায্য করে।

5/5 - (18 votes)

Farhana Mourin

আমি একজন বিউটি ব্লগার। রূপচর্চা বিষয়ক অনেক এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে পাওয়া টিপস গুলো আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করি। আমাকে আরো উৎসাহিত করতে আমার দেয়া টিপস গুলো থেকে আপনি কতটুকু উপকার পেলেন তা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button