ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

আপনি কি ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম জানতে চান? ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় খুজঁছেন কিন্তু আশানুরূপ ইনকাম বা সাবসক্রাইবার না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন? কিংবা নতুন কোনো ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে চাচ্ছেন? কিন্তু সঠিক দিক নির্দেশনা বা সাপোর্ট পাচ্ছেন না? নাকি ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম জানতে, ফ্রি ছবি, ভিডিও ক্লিপ বা ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ড নিয়ে চিন্তিত? কোন ফ্রী ভালো ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার বা অ্যাপস কি পাচ্ছেন না? তাহলে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন।

এই আর্টিকেলটি আপনাকে সাহায্য করবে বলে আশা করি। পাশাপাশি আমি ইউটিউবিং শুরু করে ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে গিয়ে যে সমস্যা গুলোর মুখোমুখি হয়েছে সেগুলোর সমাধান কিভাবে করেছি সবকিছুই এই পোস্টে শেয়ার করব। যারা নতুন  ইউটিউবিং শুরু করছেন তাদের জন্য অনেক  উপকারী হবে এই পোস্টটি।

এই আর্টিকেলে মূলত ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ও নিরাপত্তা, ইউটিউব চ্যনেলের নাম নির্বাচন, প্রোফাইল ছবি ইউটিউব ব্যানার ডিজাইন, থাম্বনেইল, ছবি ও ভিডিও ক্লিপের ফ্রী সংগ্রহ যা কপিরাইট বহির্ভূত ও ব্যবহারের উপযোগী ভিডিও, ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ড, ভিডিও এডিটিং এর ফ্রি ব্যাকগ্রাউন্ড সফটওয়্যার, অ্যাপস এবং বিশেষ কিছু ইউটিউব সফটওয়্যার ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করেছি।

যারা এই বিষয়গুলো ইতিমধ্যে জেনে নিয়েছেন  তাদের জন্যও রয়েছে কিছু গুরুত্বপূর্ণ টিপস। অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইট থেকে এসইও রিলেটেড আর্টিকেলগুলো করতে পারেন, যা আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে গুগল প্রথম সার্চ রেজাল্ট পেইজে প্রেজেন্ট করতে সাহায্য করবে এবং খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

চ্যানেল তৈরি সবচেয়ে প্রথম তুলনামূলক সহজ ধাপ ও কাজ। তার আগে ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম ভালোভাবে জেনে নিতে হবে এই পোস্ট থেকে। ইউটিউব একাউন্ট এ ক্লিক করে ক্লিক করার সাথে সাথে চ্যানেল তৈরি হয়ে যাবে। এরপরে প্রোফাইল। চ্যানেল ছবি, কভার ছবি এবং এবাউট অংশটি পূর্ণ করে নিতে হবে। পরবর্তীতে তা পরিবর্তন করার সুযোগ রয়েছে।

ইউটিউব চ্যানেলের সুন্দর নাম

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউব চ্যানেলের নাম- যা আপনার চ্যানেলে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই চ্যানেল নাম দিয়েই আপনার ইউটিউব চ্যানেলের পরিচিতি লাভ করবে। কেউ আপনার ইউটিউব চ্যানেলের নাম মনে রাখবে এবং পরবর্তীতে খুঁজে বের করবে। তাই ইউটিউব চ্যানেলের নাম সহজে পরিবর্তন করা উচিত নয়। তখন চ্যানেলের নামটি কোন ধরনের হবে, কি নাম ব্যবহার করলে মানুষ পছন্দ করবে?

Well, খুবই সহজ। প্রথমে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ক্যাটাগরি সিলেক্ট করে নিন ও সেই অনুযায়ী নাম নির্ধারণ করুন। যেমন হেলথ এন্ড বিউটি চ্যানেলের জন্য Health Tips, গেমিং চ্যানেল এর জন্য Mr-jatt, আইসিটি বিষয়ক নাম হতে পারে টেক ট্রিক্স, ক্রিয়েটিভ  চ্যানেলের নাম হতে পারে That’s Awesomeness ইত্যাদি। এরকম অসংখ্য সুন্দর মার্জিত নাম রয়েছে। এছাড়া সবচেয়ে ভালো হয় আপনি যদি নিজে ওয়েবসাইটের সাহায্য ছাড়া ইউটিউব চ্যানেলের নাম কি আপনার চিন্তা ও কল্পনা জগতের সাহায্যের বেছে নিন। দুদিন সময় নিয়ে এ কাজটি সুন্দরভাবে করার জন্য যথোপযুক্ত।

নাম নির্বাচনের সময় নাম অবশ্যই  সংখ্যা ,দুর্বোধ্য নাম, খুব বড় অথবা একদম ছোট, আপত্তিকর কিছু এবং মানুষ অর্থাৎ আপনার দর্শক-শ্রোতারা পছন্দ করবে না- এমন নাম ব্যবহার করবেন না। ইউটিউব চ্যানেলের সুন্দর নাম নির্বাচন হয়ে গেলে আপনি নিজেকে প্রশ্ন করুন, যদি আপনি একজন দর্শক হতেন, তবে কি এই নামটি আপনি পছন্দ করতেন?

ইউটিউব চ্যানেলের লোগো

আপনার্ত নাম নির্বাচন হয়ে গেলে এবার আপনার চ্যানেলের প্রোফাইল ফটো বা ইউটিউব চ্যানেলের লোগো নির্ধারণের পালা। আপনার ইউটিউব চ্যানেল এর প্রোফাইল ছবি পুরো চ্যানেলটিকে একসাথে উপস্থাপন করে। এক্ষেত্রে অবশ্যই ইউটিউবের Dark Theme ও White Theme এর কথা মাথায় রাখতে হবে। ইউটিউব চ্যানেলের লোগো বা প্রোফাইল ছবি তৈরি করার জন্য Free Logo Designs ব্যবহার করতে পারেন।

এই ওয়েবসাইটটি এক গ্রাহককে বিভিন্ন লোগো উপস্থাপন করবে ও তা ইচ্ছামত কাস্টমাইজ করার সুযোগ দিবে। কোন ধরণের watermark বা money/currency এইখানে নেই। শুধুমাত্র একটা সমস্যা, Logo গুলোর বিনামূল্যে Feature এর রেস্যুলেশন তুলনামূলক কম, যা ছবিটি বড় করে দেখলেই শুধু সমস্যাটা ধরা পরে। কিন্তু ইউটিউব চ্যানেলের লোগো বা প্রোফাইল ছবির সেকশনে এই 200×200 px এর লোগো গুলো সেট করার পর একদম পার্ফেক্ট হয়ে যায়।

ইউটিউব ব্যানার ডিজাইন

এরপর ইউটিউব ব্যানার ডিজাইন। এই ব্যানারে আপনার চ্যানেল সম্পর্কিত কিছু তথ্য উপস্থাপন করতে হবে বা চ্যানেলটি কোন বিষয়টা বিস্তারিত .jpg আকারে সেট করতে হবে। অবশ্যই মোবাইল, ট্যাবলেট, পিসি এ ধরনের কথা মাথায় রেখে ব্যানার তৈরি করতে হবে।

অনেকেই শুধু ইউটিউব চ্যানেলের নাম কি বড় করে উপস্থাপন করে। যা একদমই উচিত নয়। প্রতিনিয়ত জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাওয়া ও বর্তমানে পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহৎ ওয়েবসাইট এবং সর্বাধিক ব্যবহৃত ভিডিও শেয়ারিং সাইট এ টিকে থাকতে নিজের চ্যানেলকে সবার থেকে আলাদা ভাবে উপস্থাপন করতে হবে।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

অ্যাবাউট সেকশনঃ এইখানে আপনার চ্যানেলের লক্ষ বস্তু এবং কোন ধরনের ভিডিও পাওয়া যাবে তা সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে হবে। পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া লিংক ও বিজনেস ইমেইল এই সেকশনে থাকে। এবং আপনার চ্যানেলের একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করে ফেলুন। এরপর ৭-১০ দিন অপেক্ষা করার পর আপনি ফেসবুক পেজ হিসেবে বিভিন্ন গ্রুপে শেয়ার করতে পারবেন।

আপনি যে বিষয়ে ভিডিও তৈরি করছেন সেই কিওয়ার্ড লিখে ফেসবুকে সার্চ দিন ও সাথে সাথে অসংখ্য গ্রুপ পেয়ে যাবেন। সেগুলোতে জয়েন করে ফেলুন ও প্রতিটি ভিডিও শেষে আপনি লিঙ্কগুলো গ্রুপে ও পেজে শেয়ার করে দিতে পারবেন।

আশা করি, ইতিমধ্যে আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করেছেন। এবার চ্যানেলের সিকিউরিটি বা নিরাপত্তা নিয়ে ভাবার সময়।

ইউটিউব চ্যানেলের নিরাপত্তা

নিরাপত্তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। ইউটিউব থেকে এই সমস্যা প্রতিরোধ করব কিভাবে? প্রথমে একটি পৃথক ইমেইল এড্রেস তৈরি করুন। ধরুন, আপনার চ্যানেলের নাম Time Clock , তাহলে আপনার ই-মেইল এড্রেসটি হবে [email protected] বা [email protected] অর্থাৎ এমন কোন ইমেইল এড্রেস যা সহজে ধারণা করা যায় না।

আপনি ইতিমধ্যে যদি আপনার ইউটিউব চ্যানেল টি তৈরি করে ফেলেন, তাহলে চিন্তার কোন কারণ নেই। ইউটিউবে একটি বিশেষ সুবিধা হল আপনি যেকোন ইমেল এড্রেস থেকে আপনার চ্যানেল টি অন্য একটি ব্র্যান্ডেড ইমেল এড্রেসে ট্রান্সফার করতে পারবেন। তাই দেরি না করে ঝটপট এ কাজটি করে ফেলুন। এবং এই ইমেইল এড্রেসটি ব্রাউজিং করতে, কোন ওয়েবসাইটে লগইন করতে, কোনো Third-party অ্যাপ্লিকেশনে ব্যবহার করবেন না এবং কারো সাথে শেয়ার করবেন না।

ইমেইল এড্রেস দিয়ে চ্যানেল ট্রান্সফার হয়ে গেলে, আপনি Gmail এর মাধ্যমে কখনোই প্রোফাইল ছবি সেট করবেন না। চ্যানেল কাস্টমাইজেশন এ গিয়ে ইউটিউব থেকে প্রোফাইল ছবি সেট করুন। কেননা অন্য কেউ যখন আপনাকে এই ইমেইল এড্রেসে মেসেজ পাঠাবে তখন আপনার প্রোফাইল ছবি গুগলের Gmail থেকে দেখানো হবে । কিন্তু আপনি যদি ইউটিউব থেকে প্রোফাইল ছবি সেট করেন তাহলে অন্য কেউ Email পাঠানোর সময় আপনার প্রোফাইল ছবিটি দেখানো হবে না।

এখন আসা যাক Two-step verification এ। আপনি Gmail এর সেটিংসে গিয়ে এই ফিচারটি এক্টিভ করে নিন যা আপনাকে অনেক সাহায্য করবে।

কোন ধরনের ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করব

আপনি যদি গতানুগতিক ধারার ইউটিউবিং করেন, সাবস্ক্রাইবার পেতে কিংবা চ্যানেল গ্রো করতে সমস্যা হবে। ধরুন ইউটিউবে অসংখ্য লিরিকস চ্যানেল আছে, এখন আপনি যদি এক্ষেত্রে সাবস্ক্রাইবার পাওয়া একটু কঠিন হবে। এখন, অনলাইনে অসংখ্য ভিডিও ঘোরাফেরা করলেও অনেক কিছুই তৈরি হয়নি। তাই চ্যানেল তৈরি করার আগে নিজেকে প্রশ্ন করুন-মূল্যবান কোন ভিডিও যা মানুষের প্রয়োজন কিন্তু এখনো তৈরি হয়নি?

আশা করি আপনি ভেবেচিন্তে খুঁজে বের করবেন। আমি কি শখের বসে কোন একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে ইউটিউবে ভিডিও করে থাকে কিংবা নিজের লাইফ স্টাইল এর ভিডিও গুলো শেয়ার করে। সে ক্ষেত্রে শুধুই শখ হিসেব ইউটিউবিং করলে, আপনি তা চালিয়ে নিতে পারেন।

ইউটিউব ভিডিও এডিটিং

এখন আসা যাক ভিডিও তৈরি নিয়ে। ভিডিও তৈরি করার জন্য আপনাকে ইউটিউব ভিডিও এডিটিং ও ফটোগ্রাফির বেসিক জ্ঞান রাখতে হবে। ইউটিউব ভিডিও এডিটিং এর জন্য, অ্যান্ড্রয়েড ফোনের মাধ্যমে ভিডিও এডিটিং করা খুবই সহজ- Kinemaster বা PowerDirector অ্যাপ দুটির যেকোনো একটি শিখে নিতে পারেন। পিসি কিংবা ল্যাপটপে ভিডিও এডিটিং এর জন্য Filmora 9 ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার শিখতে পারেন। ফটোগ্রাফিতে ভালো করতে আপনি সাদমান সাদিক এর মোবাইল ফটোগ্রাফি ফ্রী কোর্স করে নিতে পারেন। এক্ষেত্রে সব ইউটিউবারদের ফটোগ্রাফি তেমন একটা প্রয়োজন হয় না।

এছাড়া filmora9 এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেল, পাওয়ারডিরেক্টর প্র এবং কাইনমাস্টার এর অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেল ফলো করতে পারেন যেখান থেকে আপনি খুব সহজেই ভিডিও এডিটিং শিখে নিতে পারেন। এবং আপনার ইংরেজি বুঝতে সমস্যা হলে টেক বাংলা প্র এর ইউটিউব চ্যানেল থেকে ফিলমোরা সফটওয়্যার সম্পূর্ণ টিউটোরিয়াল দেখে নিতে পারেন।

ইউটিউব ভিডিও এডিটিং এর জন্য সবচেয়ে ভাল সফটওয়্যার কোনটি

আগেই বলেছি, এন্ড্রয়েড ফোনের ভিডিও এডিটিং করার জন্য powerdirector pro এবং‌ kinemaster খুবই কার্যকরী। কাইনমাস্টার সাধারণত লো কোয়ালিটির ফোনে রান করে না, এক্ষেত্রে পাওয়ার ডিরেক্টর খুবই কার্যকরী। অন্যদিকে, কাইনমাস্টার এ ভিডিও এডিটিং এর অপশন এবং সুযোগ অনেক বেশি। তাই সাধারণ ও সহজভাবে ভিডিও এডিটিং করতে চাইলে পাওয়ারডিরেক্টর প্র খুবই সাহায্য করবে। এবং কম্পিউটারের জন্য, ল্যাপটপের জন্য ফিলমোরা সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকরী ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। একটি লো থেকে হাই, ল্যাপটপ থেকে পিসি – সব ধরনের উইন্ডোস ডিভাইসে কার্যকরী।

এখন সমস্যা হলো অধিকাংশ ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার ওয়াটারমার্ক বহন করে অর্থাৎ ভিডিওর উপরে বড় করে লেখা থাকে made with kinemaster বা, made with filmora 9. এই সমস্যা সমাধানের জন্য আপনি ক্রাক সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে Tech Bigs থেকে Power Director বা কাইনমাস্টার Kinemaster download করে নিতে হবে। অবশ্যই ডাউনলোডের সময় হ্যাক মোড সিলেক্ট করুন। এবং ফিলমোরা লাইনের জন্য আপনি ইউটিউব থেকে সার্চ দিয়ে ক্রাক করার উপায় জেনে নিতে পারেন।

আমরা কখনোই আপনাকে সফটওয়্যার ক্র্যাক করতে উৎসাহিত করি না কিন্তু আপনি যদি নতুন ইউটিউবার হন বা পরীক্ষামূলক ভাবে ভিডিও এডিটিং শিখছেন তাহলে ক্রাক ভার্শন গুলো দেখতে পারেন। এক্ষেত্রে প্রাইভেসি এবং সিকিউরিটি সমস্যা হতে পারে এবং আপনি ওই সফটওয়্যার কোম্পানি থেকে কোন ধরনের সহায়তা বা আপডেট পাবেন না।

ইউটিউব থাম্বনেইল তৈরি

আপনারা ইউটিউবের ভিডিওর শুরুতে যে ছবিটি দেখতে পান তাই মূলত ইউটিউব থাম্বনেইল। ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করার সময় এই থাম্বনেইল টি সেট করে দিতে হয়। ধ্বনি মূলত আপনার ভিডিওটি কোন বিষয়ে তা প্রকাশ করে। সব সময় ভিডিও মূল বিষয়টি বা টাইটেলটি Thumbnail এ দেখাবেন। আপনার ভিডিওর বিষয় যদি হয়- কক্সবাজার ভ্রমণ, তাহলে থাম্বনেইলে সেন্টমার্টিন দ্বীপের একটি ছবি দিন ও যে কোন এক জায়গায় লিখুন- কক্সবাজার ভ্রমণ- সৌন্দর্য, পর্যটন স্থানসমূহ ও ব্যায়।

কক্সবাজার ভ্রমণ শব্দটি তূলনা মূলক বড় করে লিখতে পারেন। আশা করি বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন। ইউটিউব থাম্বনেইল তৈরি করার জন্য অ্যান্ড্রয়েড ও উইন্ডোজ দুটোতেই canva হলো বেস্ট। এছাড়া অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ Pixellab লিখন যথেষ্ট ভালো। অ্যাপ গুলোর মাধ্যমে আপনি শুধু ইউটিউব এর থাম্বনেইল নয়, এর পাশাপাশি আরও অনেক এডিটিং ও বিভিন্ন কাজ করতে পারেন। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য যে, canva একটি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক কোম্পানি হলেও অসংখ্য বাংলা ফ্রন্ট আপনি যেখানে পাবেন।

ফ্রী ইমেজ ও ভিডিও ক্লিপ:

ভিডিও এডিটিং শেখার পর আপনার বিভিন্ন ধরনের ছবি ও ভিডিও ক্লিপ প্রয়োজন হবে। এক্ষেত্রে এক্ষেত্রে Free Pick এ অসংখ্য ভেক্টর ইমেজ পাবেন যেগুলো অনায়াসে ব্যবহার করতে পারবেন। শুধুমাত্র ভিডিও ডেসক্রিপশনে উল্লেখ করে দিতে হবে যে আপনি ফ্রীপিকের রিসোর্স ব্যবহার করেছেন । যেমন- www.freepik.com থেকে এই ভিডিওতে কিছু ছবি ব্যবহৃত হয়েছে।

এছাড়া ন্যাচারাল ছবি, গাছপালা ,নদনদী বাড়িঘর, এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক ছবির জন্য Piexels একটি গুরুত্বপূর্ণ ওয়েবসাইট। এক্ষেত্রে ঠিক আগের মতো ডেসক্রিপশনে উল্লেখ করে দিতেতে হবে।

ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ড:

ব্যাকগ্রাউন্ড অডিও বা সাউন্ড এর জন্য ইউটিউবে নিজের একটি লাইব্রেরী রয়েছে যা YouTube Library নামে পরিচিত। এখান থেকে আপনি সব ক’টি সাউন্ড ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু ইউটিউব লাইব্রেরির সমস্যা হল অসংখ্য ইউটিউবার এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে বলে প্রায়ই আপনার ভিডিওর সাথে অন্য একটি ভিডিওর ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ড নিয়ে যেতে পারে। তাই এই সমস্যা সমাধানে আপনি Hook Sounds ব্যবহার করতে পারেন। পাশাপাশি NCS বা Neffex এর বিভিন্ন ট্রাক সং ব্যবহার করতে পারেন যেগুলো সম্পূর্ণ কপিরাইট মুক্ত। পাশাপাশি Fat Rat বা Far Rat Accuriam এর বিভিন্ন song ব্যাবহার করতে পারবেন। সবগুলো ফ্রি রিসোর্স ব্যবহার করার সময় তাদের নাম উল্লেখ করে দিতে হবে ও লিঙ্কে দিয়ে দিতে হয়।

এনালাইসিস:

প্রতিটি ইউটিউবার সাধারণত YT Studio ব্যবহার করে থাকে। YT Studio এর মাধ্যমে এর মাধ্যমে ভিডিও আপলোড, Thumbnail সেট, চ্যানেল কাস্টমাইজেশন, মনিটাইজেশন, এনালাইসিস সহ বিভিন্ন ধরনের Feature and Permission ব্যবহার করা যায়। আপনি সবার থেকে একধাপ এগিয়ে যাওয়ার জন্য YT Studio এর পাশাপাশি Tube Buddy ব্যাবহার করতে পারেন। YT Studio ওয়েবসাইট হিসেবে ও Tube Buddy ক্রোম এক্সটেনশনের হিসেবে ব্যবহার করতে হয়। পাশাপাশি ইউটিউব টার্মস এন্ড পলিসি জানার জন্য YouTube Creators চ্যানেলটি  ফলো করতে পারেন।

ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন

গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন করতে আপনার অবশ্যই ইউটিউব এর নির্দিষ্ট কিছু শর্ত মানতে হবে। আপনার চ্যানেলের 1000 সাবস্ক্রাইবার ও বিগত বারো মাসে 4000 Hours Watch Time থাকতে হবে। এছাড়া আপনার চ্যানেলে 5000 সাবস্ক্রাইবার হলেই আপনি Famebit এর মাধ্যমে স্পন্সরশীপের জন্য এপ্লাই করতে পারেন এবং অধিকাংশ কোম্পানি ছোট ছোট চ্যানেলকেই স্পনসর্শিপ দিয়ে থাকে। এর সাথে আপনি লোকাল স্পনসর্শিপ এর জন্য চেষ্টা করে দেখতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ ইউটিউবে ভিডিও আপলোড এবং এসইও নিয়ম

মোবাইলে গেম খেলে টাকা আয় করতে পারবেন গেমের ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করে। যদি আপনি গেম খেলায় খুবই দক্ষ হন। নিচের পোস্টটি আপনার জন্য খুবই হেল্পফুল হবে। তাই এটি দেখে নিন।

আশাকরি ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম এবং ইউটিউব চ্যানেল সম্পর্কে আপনি পরিপূর্ণ একটা ধারণা পেয়েছেন এবং আপনাকে বিন্দুমাত্র হলেও সাহায্য করতে পেরেছি। তাই দেরি না করে এখনি বিভিন্ন ধাপে কাজ গুলো শুরু করে দিন। যেহেতু ইউটিউবে সব কাজই কম্পিউটার বা মোবাইল স্ক্রিনের সামনে বসে করতে হয়, তাই নিজের চোখের যত্ন নিতে ভুলবেন না। আশা করছি, একদিন আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে শত শত মানুষ উপকৃত হবে ।

লেখক
আহনাফ লাবীব
সিলেট ক্যাডেট কলেজ
নবম শ্রেণি

5/5 - (66 votes)

One thought on “ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!