বিউটি টিপস

প্রাকৃতিক উপাদানে ঠোঁট গোলাপি করার উপায়

আজকের পোস্টে ঠোঁট গোলাপি করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। মুখের সৌন্দর্য বলার ক্ষেত্রে গোলাপি ঠোঁট একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে বিবেচিত হয়। ঠোঁটের সৌন্দর্যের মাপকাঠি হলো গোলাপি ও কোমল ঠোঁট, তাই সবাই চায় নরম ও গোলাপি ঠোঁট, কিন্তু আপনি হয়তো জানেন না যে ঠোঁটের রঙ আপনার স্বাস্থ্য ও রোগেরও ইঙ্গিত দেয়। ঠোঁটের রং গোলাপি হওয়া শুধু স্বাস্থ্যেরই লক্ষণ নয়, মুখের সৌন্দর্যেরও লক্ষণ।

আপনার ঠোঁটের রঙ দ্বারা রোগটি জানুন

ঠোঁটের গোলাপি ভাব সৌন্দর্যের বৈশিষ্ট্য, আপনি যদি এর বাইরে চিন্তা করেন তবে ঠোঁট আপনার স্বাস্থ্য সম্পর্কে অনেক কিছু বলে দেয়। আপনি যদি কোনো রোগে ভুগে থাকেন তাহলে আপনার ঠোঁটের রং পরিবর্তন হতে থাকে। বেশিরভাগ মানুষ পরিবর্তনশীল ঠোঁটের রঙকে উপেক্ষা করে এবং কখনও কখনও তারা খেয়ালও করে না।

লাল ঠোঁট- আপনার ঠোঁট যদি আগের থেকে বেশি লাল দেখাতে শুরু করে, তাহলে বুঝবেন এটা স্বাস্থ্য সংক্রান্ত রোগের লক্ষণ। লাল ঠোঁট মানে আপনার লিভার দুর্বল বা সঠিকভাবে কাজ করছে না।

এছাড়া যেকোনো খাবারে অ্যালার্জির কারণেও ঠোঁটের লালভাব হতে পারে। এর ফলে মাঝে মাঝে ঠোঁট ফুলে যায়।

হলুদ বা সাদা ঠোঁট- হলুদ বা সাদা ঠোঁট মানে আপনার রক্তস্বল্পতা বা রক্তশূন্যতা হতে পারে, কারণ স্বাভাবিক ঠোঁটে এই ধরনের ঠোঁট থাকে না। রক্তে লাল হিমোগ্লোবিনের অভাবের কারণে ঠোঁটের রং হলুদ বা সাদা হয়ে যায়।

কালো ঠোঁট- বেশি বিউটি প্রোডাক্ট ব্যবহারে ঠোঁট কালো হতে শুরু করে। কিন্তু তা ছাড়া যাদের সিগারেট খাওয়ার অভ্যাস আছে তাদের ঠোঁটও কালো হয়ে যায়।

বেগুনি ঠোঁট- যদি আপনার ঠোঁটের রঙ প্রাকৃতিক রঙ থেকে বেগুনি হয়ে থাকে, তাহলে তার মানে হৃৎপিণ্ড বা ফুসফুসের কোনো রোগ আপনাকে বিরক্ত করছে। এছাড়াও, এটি পরিপাকতন্ত্রের ব্যাঘাতকেও নির্দেশ করে।

কেন ঠোঁট তাদের গোলাপী রং হারায়?

গোলাপী এবং কোমল ঠোঁট একটি সুস্থ মানুষের বৈশিষ্ট্য। অনেক সময় আবহাওয়ার পরিবর্তন, প্রখর সূর্যালোক, ধুলাবালি ও মাটির কারণে ঠোঁটের গোলাপি রং চলে যায়।

  • পানির অভাবে ঠোঁট শুকিয়ে যেতে শুরু করে। শুষ্ক ঠোঁটের যত্ন নেওয়া খুবই জরুরি।
  • কিছু সময় পর ঠোঁটের ত্বকে মরা চামড়া জমতে শুরু করে। যা দূর করা খুবই জরুরি। ঠোঁটের মরা চামড়া পরিষ্কার না করলে কালো ভাব বাড়তে থাকে।
  • যারা ধূমপান করেন, তাদের ঠোঁটের স্বাভাবিক গোলাপি আভা কালো হয়ে যায়। ঠোঁটের গোলাপি ভাব ধরে রাখতে হলে সিগারেটের নেশা থেকে মুক্তি পেতে হবে।
  • ঠোঁটে লাগানো লিপ কালার মুখের সৌন্দর্য বাড়ায়।
  • দীর্ঘক্ষণ রোদে থাকার কারনেও ঠোঁটের রং কালো হয়ে যায়।
  • যারা সাঁতার কাটে এবং দীর্ঘক্ষণ পানিতে থাকে তাদের ঠোঁট কালো হয়ে যায়।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে- পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণেও ঠোঁটের গোলাপি ভাব কমে যেতে পারে। লিপস্টিক বা লিপগ্লাসের মধ্যে কিছু উচ্চ এবং সুগন্ধযুক্ত উপাদান মেশানো হয়, যার কারণে কিছু মহিলার অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। কোন পণ্য গ্রহণ করার আগে, এটি আপনার ত্বকে প্রয়োগ করে পরীক্ষা করুন।

লাইফস্টাইল এবং ডায়েট- লাইফস্টাইল এবং ডায়েটে ভারসাম্যহীনতাও ঠোঁট কম গোলাপি হওয়ার কারণ।

ভিটামিন সি-এর ঘাটতি- ভিটামিন সি ঠোঁট গোলাপী হওয়ার জন্য পরিচিত। আপনি যদি আপনার খাবারে ভিটামিন সি গ্রহণ না করেন তাহলে আপনার ঠোঁট কালো হয়ে যাবে। ভিটামিন সি পেতে আপনাকে অবশ্যই তাজা ফল ও শাকসবজি খেতে হবে।

পানির অভাব- ঠোঁট গোলাপি রাখতে চাইলে প্রচুর পানি পান করুন। দিনে কমপক্ষে 3 লিটার পানি পান করতে হবে যাতে ঠোঁট আর্দ্র থাকে।

বারবার ঠোঁট চাটা- শুকনো ঠোঁটকে আর্দ্র করার জন্য বারবার ঠোঁট চাটা ঠিক নয়, যার কারণে ঠোঁট কালো হয়ে যায়।

সূর্যের UV রশ্মি- সূর্য মেলানিন পিগমেন্টেশন বাড়ায়। বেশিক্ষণ রোদে থাকার কারণে ঠোঁট রোদের তাপ সহ্য করতে না পেরে কালো হয়ে যায়। ঠোঁট রক্ষার জন্য UV সুরক্ষা সহ একটি লিপজেল লাগাতে হবে।

ক্যাফেইন সেবন- এটা জানা যায় যে ক্যাফেইন দাঁতকে হলুদ করে কিন্তু ঠোঁটকেও কালো করে। আপনি যত বেশি কফি পান করবেন আপনার ঠোঁট তত কালো হবে। কফি ও চা পান করলেও ঠোঁট কালো হয়ে যায়।

ধূমপান- সিগারেটে নিকোটিন থাকে যা ঠোঁটের ত্বক পুড়ে যায়, তাই ঠোঁট কালো হতে শুরু করে। কিন্তু আপনি ধূমপান বন্ধ করার সাথে সাথে আপনার ঠোঁট নিজে থেকেই সেরে যাবে।

মেকআপ পণ্য- আপনি যদি ঠোঁটকে আকর্ষণীয় দেখাতে সস্তা এবং কম বাজেটের লিপস্টিক বা লিপগ্লাস ব্যবহার করেন, তবে এই পণ্যগুলিও আপনার ঠোঁটকে কালো করে তুলছে। এই সস্তা পণ্যগুলিতে সীসা, গ্লাস এবং সুগন্ধযুক্ত উপাদান রয়েছে যা মহিলাদের অ্যালার্জির সমস্যা সৃষ্টি করে এবং আপনার ঠোঁট কালো করে।

অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া- বেশি ওষুধ খেলেও ঠোঁটের ওপর খারাপ প্রভাব পড়ে, সেই সঙ্গে অ্যান্টিবায়োটিক খেলে শরীরেও খারাপ প্রভাব পড়ে।

কালো ঠোঁটের ঘরোয়া প্রতিকার

ঠোঁটের গোলাপি ভাব ধরে রাখতে ও কালো ভাব দূর করতে এই বিষয়গুলো মাথায় রাখা জরুরিঃ-

  • ক্রিমে লেবু মিশিয়ে তাতে চিনি মিশিয়ে স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করুন। ঠোঁট ধীরে ধীরে গোলাপী হয়ে যাবে।
  • গ্লিসারিনে জাফরান, গোলাপজল ও লেবু মিশিয়ে লাগালেও ঠোঁট গোলাপি হয়।
  • রাতে সবসময় মেকআপ তুলে ঘুমান। ঠোঁটে লিপস্টিক রাখবেন না। সকালে ব্রাশ করার সময় ঠোঁটে টুথব্রাশ ঘষুন, এতে মরা চামড়া উঠে যাবে।
  • গোলাপ পাতা পিষে এর রস মধুর সাথে মিশিয়ে ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট গোলাপি হয়।
  • গোলাপ পাতা দুধে ভিজিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি দিনে ২-৩ বার ঠোঁটে লাগান।
  • রাতে চিনি, মধু ও নারকেল তেল ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট গোলাপি হয়।
  • খাবারে বিটরুট, টমেটো, তরমুজসহ পুষ্টি উপাদান ব্যবহার করুন।
  • দুধের সাথে হলুদ মিশিয়ে লাগালে ঠোঁটের কালচে ভাব দূর হয়।
  • ঠোঁটে খাঁটি দেশি ঘি লাগালে ঘুম ঘুম ভাব ঠোঁট নরম ও গোলাপি করে।
  • ডালিম দুটি পিষে নিন। এই পেস্টে ক্রিম মিশিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন। এটি এক সপ্তাহের জন্য কয়েকবার ঠোঁটে লাগান।
  • সস্তা এবং নিম্নমানের পণ্য ব্যবহার করবেন না কারণ এতে রাসায়নিক এবং সুগন্ধযুক্ত পদার্থ রয়েছে যা ঠোঁটকে কালো করে তোলে।
  • দীর্ঘক্ষণ রোদে থাকা এড়িয়ে চলুন। কারণ সূর্য মেলানিন পিগমেন্টেশন বাড়ায়। যার কারণে ঠোঁটের রং গাঢ় হয়ে যায়।
  • দিনে ৩ বারের বেশি কফি খাবেন না।
  • শুকনো ঠোঁট বারবার জিভ দিয়ে চাটবেন না।
  • গরম তরল এবং খাবার থেকে দূরে থাকুন।

ঠোঁট গোলাপি রাখার ঘরোয়া উপায়

ঠোঁট গোলাপী রাখতে, ক্রিম বা লিপজেল ইত্যাদি ব্যবহারের আগে এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যবহার করা আরও ভাল বিকল্প হয়ে উঠতে পারে।

চিনি, অলিভ অয়েল এবং লেবুর মিশ্রণ ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

প্রথমে এক বাটি চামচ চিনি নিয়ে তাতে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল ও লেবু মেশান। তারপর প্রতিদিন আপনার ঠোঁটে ম্যাসাজ করুন। এর পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ঠোঁটের কালো ভাব দূর হয় এবং ঠোঁট গোলাপি হয়

ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী লেবু ও মধুর প্যাক

লেবু ও মধুর প্যাক তৈরি করে ঠোঁটে বিশ থেকে ত্রিশ মিনিট রাখুন, তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করুন। গোলাপি ঠোঁটের জন্য এটি একটি কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিকার।

গ্লিসারিন এবং লেবুর রসের মিশ্রণ ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

গ্লিসারিন ও লেবুর রস মিশিয়ে ঘুমানোর আগে ঠোঁটে লাগান, তারপর সকালে ধুয়ে ফেলুন। ঠোঁটের কোমলতা ধরে রাখতে গ্লিসারিন খুবই উপকারী।

আরো পড়ুনঃ লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

ঠোঁট গোলাপি করার জন্য পানি খাওয়া উপকারী

আপনিও যদি আপনার ঠোঁটকে গোলাপি রাখতে চান, তাহলে সবার আগে আপনার রুটিনে পর্যাপ্ত পরিমাণে জল যোগ করুন, কারণ ঠোঁট গোলাপি হলেও ছিঁড়ে গেলেও দেখতে মোটেও আকর্ষণীয় হবে না।

গোলাপজল, লেবু ও দই ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

ঠোঁটের কালচে ভাব দূর করতে সমপরিমাণ গোলাপজল, লেবু দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে লাগালেও ঠোঁটের রং ভালো হয়।

ভিটামিন ই ক্যাপসুল ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

আপনিও যদি ঠোঁট গোলাপি করার ঘরোয়া উপায় খুঁজছেন, তাহলে ভিটামিন ই ব্যবহার করুন। ভিটামিন ই ক্যাপসুল ঠোঁটে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। এরপর টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে লিপবাম লাগান।

ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী ক্রিম এবং টমেটো জুস

এমনকি ক্রিমে টমেটোর রস লাগালে ঠোঁট গোলাপি হয়ে যায়।

ঠোঁট গোলাপি করার জন্য অলিভ অয়েল এবং চিনি উপকারী

১ চা চামচ অলিভ অয়েলে ১ চা চামচ চিনি মিশিয়ে কিছুক্ষণ ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন। পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে নারকেল তেল বা দেশি ঘি ঠোঁটে লাগান। সপ্তাহে দুবার এই প্রক্রিয়াটি করুন।

আরো পড়ুনঃ জয়তুন তেলের উপকারিতা কি এবং ব্যবহারের সতর্কতা

অ্যালোভেরা জেল এবং বিটরুট পাউডার ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

অ্যালোভেরা জেল এবং বিটরুট পাউডার মিশিয়ে নিন। ঘুমানোর সময় ঠোঁটে লাগান।

কমলা ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

আপনার ঠোঁটে কমলা ঘষুন। কমলার রস ঠোঁট নরম ও সুন্দর করে।

আরো পড়ুনঃ কমলা খাওয়ার উপকারিতা

ঠোঁট গোলাপি করার জন্য ডালিমের রস উপকারী

গোলাপি ঠোঁট পেতে ডালিমের রসও ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়া কালচে ঠোঁট সুন্দর করতে ডালিমের রসের সঙ্গে গাজরের রস মিশিয়ে ঠোঁটে লাগান। এই প্রতিকার ঠোঁট নরম করে তোলে।

আরো পড়ুনঃ ডালিমের উপকারিতা

নারকেল জল, শসার রস এবং লেবুর রসের মিশ্রণ ঠোঁট গোলাপি করার জন্য উপকারী

নারকেলের জল, শসার রস এবং লেবুর রস মিশিয়ে ঠোঁটে লাগালেও ঠোঁট গোলাপি হয়।

ঠোঁট গোলাপি করার জন্য লেবু উপকারী

কালো ঠোঁটের চিকিৎসায় লেবু খুবই উপকারী। দুইবার ঠোঁটে লেবুর রস লাগান।

যদিও বাজারে অনেক ঠোঁটের গোলাপী ক্রিম পাওয়া যায়, তবে আপনি প্রথমে উপরে উল্লিখিত আয়ুর্বেদিক ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্যবহার করে দেখুন। যদি এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি সাহায্য না করে, তাহলে ঠোঁটের কালো রং থেকে মুক্তি পেতে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (85 votes)

Farhana Mourin

আমি একজন বিউটি ব্লগার। রূপচর্চা বিষয়ক অনেক এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে পাওয়া টিপস গুলো আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করি। আমাকে আরো উৎসাহিত করতে আমার দেয়া টিপস গুলো থেকে আপনি কতটুকু উপকার পেলেন তা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button