স্বাস্থ্য

ডিম খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা

শরীর সুস্থ রাখতে অনেক পুষ্টির প্রয়োজন হয়। এই পুষ্টি চাহিদা খাদ্যের মাধ্যমে পূরণ হয়। এমন পরিস্থিতিতে ডিম খাওয়া শরীরের পুষ্টি যোগাতে সাহায্য করতে পারে। ডিম অনেক পুষ্টিগুণে ভরপুর, যা শরীরের শারীরিক ও মানসিক উপকারে কাজ করতে পারে। এই পোস্টে আমরা শরীরের জন্য ডিম খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি। এছাড়াও এখানে আপনি ডিমের বিভিন্ন ব্যবহার সম্পর্কে জানতে পারবেন। একই সাথে, ডিম খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কিত তথ্যও পোস্টে সতর্কতার জন্য শেয়ার করা হয়েছে।

আসুন প্রথমে জেনে নিই ডিম খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো কেন?

Contents

ডিম খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো কেন?

ডিম খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো, কারণ এতে প্রচুর পুষ্টি থাকে। এতে প্রধানত প্রোটিন, প্রয়োজনীয় অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড (লিনোলিক, ওলিক অ্যাসিড), আয়রন, ভিটামিন এ, বি৬, বি১২, ফোলেট, অ্যামিনো অ্যাসিড, ফসফরাস এবং সেলেনিয়াম রয়েছে। সেই সঙ্গে এতে উপস্থিত ভিটামিন A, ভিটামিন B12 এবং সেলেনিয়াম শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও, ডিমে পাওয়া জেক্সানথিন এবং লুটেইন চোখের জন্য উপকারী। এখন আমরা ডিমের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে আরও বিশদ বর্ণনা করতে যাচ্ছি।

পোস্টের এই অংশে আমরা বিভিন্ন সমস্যায় ডিমের উপকারিতা সম্পর্কিত তথ্য দিচ্ছি।

ডিমের উপকারিতা

ডিম খাওয়ার উপকারিতা অনেক হতে পারে। ডিম নিচে উল্লিখিত কোনো শারীরিক সমস্যার নিরাময় নয়। এটি শুধুমাত্র তাদের প্রতিরোধ বা তাদের ঝুঁকি কমাতে সহায়ক।

ওজন কমাতেঃ ডিম খাওয়া ওজন কমাতে ও নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। এ বিষয়ে করা একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে। প্রোটিন দীর্ঘ সময় শরীরে শক্তি ধরে রাখতে এবং পেট ভরা রাখতে কাজ করতে পারে। এতে বারবার খাওয়ার অভ্যাস বন্ধ করা যায় এবং শরীরে ক্যালরি যাওয়ার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এই প্রক্রিয়াটি ক্রমবর্ধমান ওজন কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে। ডিম খাওয়ার পাশাপাশি ওজন কমানোর জন্য ব্যায়ামকেও রুটিনে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

হাড়ের জন্যঃ ডিম খাওয়ার উপকারিতার কথা বলতে গেলে হাড়ের কথা বলা জরুরি। NCBI (ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ইনফরমেশন) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, কিছু শিশুকে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রতিদিন ডিম খাওয়ানো হয়েছিল। গবেষণায় দেখা গেছে যে ডিম খাওয়া হাড়কে শক্তিশালী করে এবং হাড়ের রোগের ঝুঁকিও কমাতে পারে। ডিমের ক্যালসিয়ামের এই লাভের পিছনে ভিটামিন ডি এবং প্রোটিনের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

চোখের জন্যঃ সিদ্ধ ডিম খাওয়া চোখের জন্য উপকারি। আসলে, ডিমে জেক্সানথিন এবং লুটেইন নামক পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়, যা ম্যাকুলার ডিজেনারেশন সমস্যা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের কারণে বয়স-সম্পর্কিত অন্ধত্ব দেখা দিতে পারে, যা বয়স বাড়ার সাথে সাথে দৃষ্টিশক্তি হ্রাস করতে পারে। ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের সমস্যা থেকে দূরে থেকে চোখকে সুস্থ রাখা যায়। এছাড়াও, ডিমে উপস্থিত ভিটামিনগুলি দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে কাজ করে।

মস্তিষ্কের জন্যঃ ডিম মস্তিষ্কের জন্য সবচেয়ে ভালো খাবার হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। যেমনটি আমরা উপরে উল্লেখ করেছি, ডিমে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন-বি১২, যা মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতে কাজ করে। এছাড়াও, ডিমের কুসুমে কোলিন থাকে, যা একটি অপরিহার্য পুষ্টি। স্নায়ুতন্ত্রকে সুস্থ রাখতে এটি প্রয়োজনীয়। তাই মস্তিষ্ককে শাণিত করতে ডিম খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। অন্য একটি গবেষণা অনুসারে, এতে প্রয়োজনীয় খনিজ এবং ভিটামিন রয়েছে, যা স্নায়ুতন্ত্র, মস্তিষ্ক এবং স্মৃতিশক্তির জন্য কোষগুলিকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে।

শক্তি বৃদ্ধিঃ সারাদিন শরীরে এনার্জি বজায় রাখতে সকালে ডিম খাওয়া উপকারি। ডিমে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও মিনারেল থাকে, যা শরীরের সমস্ত কোষে শক্তি উৎপাদনে কাজ করতে পারে। এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য শরীরে শক্তি ধরে রাখতে সাহায্য করে। তাই সারাদিন শরীরে শক্তি বজায় রাখতে সকালে ডিম খাওয়া খুব উপকারি।

পেশী তৈরি করতেঃ ডিমের অনেক সুবিধার মধ্যে একটি হল পেশী ভর বৃদ্ধি করা। ডিমের সাদা অংশ প্রোটিন এবং অ্যামিনো অ্যাসিড সমৃদ্ধ। এই পুষ্টি উপাদানগুলি শরীরের পেশী গঠনে সহায়ক। এর সাথে, এর সেবনে পেশী শক্তিশালী থাকতে পারে (4) । এই কারণে, জিমে যারা প্রায়ই জিমের পরে ডিম খান।

ক্যান্সার থেকে বাঁচতেঃ ডিম খাওয়ার উপকারিতা ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক। এ বিষয়ে করা বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে যে ডিমের সাদা অংশ এবং কুসুমের প্রোটিনে রয়েছে ক্যান্সার বিরোধী কার্যকলাপ যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধ করতে সাহায্য করে। এটি ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারে। অপনাদের আরও খেয়াল রাখতে হবে যে ডিম ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সহায়ক, কিন্তু কোনোভাবেই ক্যান্সার নিরাময় হিসেবে বিবেচনা করা উচিৎ নয়। যদি কারো ক্যান্সারের সমস্যা থাকে, তাহলে চিকিৎসকের নির্দেশিত চিকিৎসা অনুসরণ করুন।

রক্তচাপের জন্যঃ যাদের উচ্চ রক্তচাপ আছে তাদের জন্য ডিম খাওয়া উপকারী। আসলে, ডিম খাওয়া রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে। ডিমের সাদা অংশে অ্যান্টি-হাইপারটেনসিভ (রক্তচাপ কমানোর) প্রভাব রয়েছে। ডিমের সাদা অংশ রক্তনালীর ভাসোডিলেশন ঘটাতে পারে। এটি তাদের কার্যকলাপ উন্নত করতে পারে। তাই ডিমের সাদা অংশ খেলে রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।

ইমিউন সিস্টেমের জন্যঃ এছাড়াও শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করতে ডিম খাওয়ার উপকারিতা পাওয়া যায়। একটি চিকিৎসা গবেষণা অনুযায়ী, ডিমে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি১২ এবং সেলেনিয়াম পাওয়া যায়, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তুলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি অনেক রোগ থেকে দূরে রাখতে সাহায্য করতে পারে।

প্রোটিনের ভালো উৎসঃ ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন পাওয়া যায়। শরীরের প্রতিটি কোষে প্রোটিন থাকে। প্রোটিন শরীরের কোষ মেরামত এবং নতুন কোষ তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। উপরন্তু, প্রোটিন শিশু, কিশোর এবং গর্ভবতীদের বিকাশের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। শরীরে প্রোটিন সরবরাহ করতে ডিম খাওয়া যেতে পারে। গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়ার আগে, একবার সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

গর্ভাবস্থার জন্যঃ গর্ভাবস্থার জন্যও ডিমের উপকারিতা পাওয়া যায়। NCBI ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে ডিম গর্ভবতীকে পর্যাপ্ত পুষ্টি প্রদান করে এবং জন্মের পর অনাগত শিশুকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করতে পারে। ডিমে রয়েছে প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান, যা ভ্রূণের সঠিক বিকাশে সাহায্য করে। তবে মনে রাখবেন শুধুমাত্র ভালোভাবে রান্না করা ডিমই খাওয়া উচিৎ।

ত্বকের জন্যঃ ডিম ব্যবহার ত্বকের জন্যও উপকারী প্রমাণিত হয়েছে। আসলে, ডিমের জলে দ্রবণীয় ডিমের ঝিল্লি (ডিমের সাদা অংশ এবং ডিমের খোসার মধ্যে টিস্যুর প্রতিরক্ষামূলক স্তর) ত্বকের বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও, ডিমের ব্যবহার ফ্রি র‍্যাডিক্যাল এবং ক্ষতিগ্রস্ত টিস্যুর সমস্যা কমিয়ে বার্ধক্যজনিত সমস্যা কমাতে পারে।

চুল এবং নখের জন্যঃ ডিম চুলের জন্যও উপকারী। ডিমের কুসুমে উপস্থিত পানিতে দ্রবণীয় পেপটাইড চুলের বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চুলে লাগাতে ডিমও ব্যবহার করতে পারেন। এতে চুল সংক্রান্ত অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এ ছাড়া ডিমের ব্যবহার নখের জন্য উপকারী। আসলে বায়োটিন (ভিটামিন-এইচ) এর অভাবের কারণে নখ ভাঙার সমস্যা দেখা দিতে পারে। এমতাবস্থায় ডিম খেলে বায়োটিনের ঘাটতি পূরণ করা যায় এবং নখ ভাঙার সমস্যা এড়ানো যায়।

ডিম খেলে কি হয় তা আমরা উপরে বলেছি, এখন ডিমের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে বলব।

ডিমের পুষ্টির উপাদান

প্রায়শই মানুষ জানার চেষ্টা করে যে ডিমে কী পাওয়া যায়, যার কারণে অনেক উপকারিতা রয়েছে। ডিমে উপস্থিত পুষ্টির কারণেই উপকারিতা রয়েছে। এই পুষ্টি সম্পর্কে বোঝার জন্য, আমরা একটি টেবিল অবলম্বন করছি।

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
শক্তি513 কিলোক্যালরি
প্রোটিন6.41 গ্রাম
মোট লিপিড (চর্বি)28.85 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট57.69 গ্রাম
ফাইবার3.2 গ্রাম
চিনি54.49 গ্রাম
ক্যালসিয়াম, Ca128 মিলিগ্রাম
সোডিয়াম, Na176 মিলিগ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট স্যাচুরেটেড16.03
কোলেস্টেরল400 মিলিগ্রাম

উপরে আমরা বলেছি ডিমে কি কি পাওয়া যায়। এখন আরও কথা হচ্ছে ডিমের ব্যবহার নিয়ে।

ডিম কীভাবে ব্যবহার করবেন

ডিম নানাভাবে ব্যবহার করা যায়। তবে, মানুষ মাত্র কয়েকটি ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন। এখানে আমরা আপনাকে ডিমের ব্যবহার সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি।

কিভাবে খাবেন:

  • ডিম সিদ্ধ করে খাওয়া যায়।
  • ডিম দিয়ে ভুর্জি বানিয়ে খাওয়া যায়।
  • ডিমের অমলেট তৈরি করা যায়।
  • রুটির সাথে রুটি-অমলেট হিসেবে খাওয়া যায়।
  • এগ রোল তৈরি করা যায়।
  • ডিমের তরকারি বানিয়ে ভাত বা রুটির সাথে খাওয়া যায়।
  • কেক তৈরিতে ডিম ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • ডিম বিরিয়ানি বানিয়ে খাওয়া যায়।
  • ডিম ফ্রাইড রাইস আকারে নেওয়া যেতে পারে।
  • ডিমের বার্গার তৈরি করা যায়।

কখন খাবেন:

  • এটি থেকে তৈরি অমলেট বা রুটি অমলেট সকালের নাস্তায় খেতে পারেন।
  • সকালে বা সন্ধ্যায় জিমের পরে সেদ্ধ ডিম খেতে পারেন।
  • এগ ফ্রাইড রাইস, বিরিয়ানি বা ডিমের কারি দুপুরের বা রাতের খাবারে খাওয়া যেতে পারে।
  • এগ রোল সন্ধ্যার নাস্তা হিসেবে নেওয়া যেতে পারে।

কতটা খাবেন:

প্রতিদিন কতটা ডিম খাওয়া উচিৎ, তা বয়স ও স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখেই নির্ধারণ করা যায়। ছোট বাচ্চাদের প্রতিদিন একটি ডিম দেওয়া ভাল। একই সময়ে, বড়রাও একটি ডিম খেতে পারেন। এই মুহুর্তে, এটি নিশ্চিত করার জন্য কোন সঠিক বৈজ্ঞানিক প্রমাণ উপলব্ধ নেই। অতএব, নিজের জন্য সঠিক পরিমাণে ডিম খাওয়ার জন্য আপনি একজন ডায়েটিশিয়ানের সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

এই নিবন্ধের পরবর্তী অংশে ডিমের হলুদ বা সাদা অংশের মধ্যে কোনটি বেশি স্বাস্থ্যকর, আমরা সে সম্পর্কে তথ্য দিচ্ছি।

ডিমের কুসুম নাকি সাদা অংশ- কোনটি স্বাস্থ্যকর?

প্রায়শই অনেকেই এই কথা শুনেছেন যে ডিমের সাদা অংশ খাওয়া উচিৎ এবং হলুদ অংশ খাওয়া উচিৎ নয়। মানুষ মনে করে হলুদ অংশ স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। এখানে আমরা বলব ডিমের কোন অংশ বেশি স্বাস্থ্যকর।

ডিম এর সাদা অংশঃ ডিম প্রোটিন সমৃদ্ধ, অপরিহার্য অ্যামিনো অ্যাসিড এবং সাদা অংশ ভিটামিন, যা শরীর সুস্থ রাখার জন্য প্রয়োজনীয়। একই সময়ে, ডিমের ব্যবহার পোড়া ক্ষতের চিকিৎসায়ও সাহায্য করতে পারে। এমন অবস্থায় বলা যায় ডিমের সাদা অংশের উপকারিতা বেশি হতে পারে।

ডিমের কুসুমঃ ডিমের কুসুমে উচ্চ পরিমাণে কোলেস্টেরল এবং চর্বি পাওয়া যায়। তাই ডিমের হলুদ অংশ খেলে শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়তে পারে। অতএব, এটি সীমিত পরিমাণে খাওয়া উচিৎ।

আসুন জেনে নেই ডিম কেনার সময় কী কী বিষয় মাথায় রাখা উচিৎ।

ডিম কেনার সময় কী কী বিষয় মাথায় রাখবেন?

ডিম খাওয়ার উপকারিতা তখনই হবে যখন সঠিক ডিম নির্বাচন করা হবে। এমন পরিস্থিতিতে আপনি যদি জানতে চান ডিম কেনার সময় কী কী বিষয় মাথায় রাখা উচিৎ, তবে এই অংশে দেওয়া তথ্যটি শুধুমাত্র আপনার জন্য।

ডিম কেনার সময় খেয়াল রাখবেন ডিম যেন কোথাও থেকে ফেটে না যায়।
সাধারণ আকারের ডিম নির্বাচন করুন।
ডিম দীর্ঘদিন দোকানে রাখলে এমন ডিম কিনবেন না। অনেক সময় ডিম বেশিক্ষণ রাখলে তা নষ্ট হয়ে যায়।
ডিম টাটকা কি না তা জানতে পানিতে ডিম ভিজিয়ে রাখতে পারেন। যদি ডিম পানিতে ডুবে যায়, তাহলে ডিমটি তাজা।

এখন আমরা বলব কিভাবে ডিমকে দীর্ঘদিন নিরাপদ রাখা যায়।

কিভাবে ডিম দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করবেন?

বেশি ডিম কিনলে কীভাবে এগুলোকে দীর্ঘদিন নিরাপদ রাখা যায় তা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে থাকেন অনেকে। তারা আজ এই ঝামেলা থেকে মুক্ত হবেন, কারণ নীচে আমরা দেখাচ্ছি কিভাবে ডিম নিরাপদে রাখতে হয়।

  • ডিম এমন জায়গায় রাখবেন না যেখানে কিছুতে ধাক্কা লেগে যেতে পারে।
  • তার জন্য প্রস্তুত করা ক্রেটে ডিম সবসময় রাখুন।
  • ফ্রিজে রেখে অনেকক্ষণ নিরাপদে রাখতে পারেন।

এখন আমরা ডিম খাওয়ার অপকারিতা সম্পর্কে বলব।

ডিমের অপকারিতা

ডিম খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা নির্ভর করে ডিম কতটা এবং কীভাবে খাওয়া হচ্ছে তার ওপর। এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে নিচে আমরা দেখে নেব ডিম খাওয়ার অপকারিতাগুলো।

ডিমে প্রচুর পরিমাণে কোলেস্টেরল থাকে, তাই এটি নিয়মিত বেশি পরিমাণে খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি থাকে।
ডিম খাওয়ার অপকারিতার মধ্যে রয়েছে অ্যালার্জিও। প্রকৃতপক্ষে, অনেক লোক ডিম খেয়ে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া পায়।
ডিম সঠিকভাবে না রান্না করে খেলে বমি ও ডায়রিয়ার মতো সমস্যা হতে পারে।
যাদের ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের সমস্যা রয়েছে তাদের ডিমের অতিরিক্ত সেবন এড়িয়ে চলা উচিৎ। ডিমের অতিরিক্ত মাত্রা এই ধরনের রোগীদের অবস্থা খারাপ করতে পারে ।

এখন আপনারা নিশ্চয়ই জেনে গেছেন ডিম খেলে কি হয়। একই সঙ্গে নিশ্চয়ই জেনেছেন যে ডিম খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতার ক্ষেত্রে পরিমাণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এর উপকারিতা শুধুমাত্র রোগকে দূরে রাখতে এবং চিকিৎসায় সাহায্য করতে পারে। কিন্তু, তাদের কখনই বোঝা উচিত নয় যে ডিম যে কোনও রোগের নিরাময়। কেউ যদি কোনো ধরনের গুরুতর সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ডিম খাওয়া উচিৎ নয়। আমরা আশা করি যে আমাদের এই নিবন্ধটি আপনার জন্য দরকারী প্রমাণিত হবে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

ফ্রিজে ডিম রাখা কি ঠিক হবে?

হ্যাঁ, ডিম বেশিক্ষণ সংরক্ষণের জন্য ফ্রিজে রাখা যেতে পারে।

আমরা কি দুধ এবং ডিম একসাথে খেতে পারি? এতে কি কোন লাভ আছে?

হ্যাঁ, সিদ্ধ ডিম ও দুধ একসঙ্গে খাওয়া যেতে পারে। এর ফলে উপরে উল্লিখিত ডিম খাওয়ার উপকারিতা পাওয়া যেতে পারে। যাইহোক, এটি নিশ্চিত করার জন্য কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায় না।

ডায়াবেটিস বা হৃদরোগীদের জন্য প্রতিদিন একটি ডিম খাওয়া ঠিক হবে কি?

হ্যাঁ, ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা সীমিত পরিমাণে ডিম খেতে পারেন। এখন প্রতিদিন কতটা ডিম খাবেন তা জানতে হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

ডিম টাটকা কি না বুঝবেন কিভাবে?

এটা জানতে হলে ডিম রান্নার আগে একটি প্লেটে ডিম ভেঙ্গে দেখতে হবে। ডিমের হলুদ অংশ গোলাকার হলে ডিম তাজা। একই সঙ্গে নষ্ট ডিমের হলুদ অংশ ছড়িয়ে পড়ে এবং সাদা অংশ পানির মতো দেখায়।

প্রতিদিন সকালে ডিম খেলে কি কি উপকার পাওয়া যায়?

হ্যাঁ, প্রতিদিন ডিম খাওয়ার উপকারিতা আছে। যা আমরা উপরের পোস্টে বলেছি।

আমরা কি কাঁচা ডিম খেতে পারি?

না, কাঁচা ডিম খেলে সালমোনেলা সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে। এমতাবস্থায় ডিম রান্না করেই খাওয়া ভালো।

কলা ও ডিম একসাথে খাওয়া কি নিরাপদ?

কলার সাথে ডিম খাওয়া যেতে পারে, তবে এটি সম্পর্কে সঠিক কোন বৈজ্ঞানিক গবেষণা পাওয়া যায় না। এই বিষয়ে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ নেওয়া ভাল।

আমরা কি ডিম এবং লেবু একসাথে খেতে পারি?

হ্যাঁ, ডিম ও লেবু একসঙ্গে খাওয়া যেতে পারে। বর্তমানে, এটি নিশ্চিত করার জন্য কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই।

ডিম কি ওজন বাড়াতে পারে?

হ্যাঁ, ডিমকে প্রোটিনের ভালো উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয়, তাই এটি ওজন কমানোর পাশাপাশি ওজন বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এটা সম্পূর্ণ নির্ভর করে আপনি যেভাবে ডিম খান তার উপর।

ডিম খেলে কি ব্রণ হতে পারে?

না, ডিম খেলে ব্রণ হয় না। বর্তমানে, এটি নিশ্চিত করার জন্য কোন বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায় না।

ডিম খেলে কি গ্যাস হতে পারে?

হ্যাঁ, কিছু মানুষের অনেকবার ডিম খেলে গ্যাসের সমস্যা হতে পারে, তবে এই বিষয়ে এখনও কোনও বৈজ্ঞানিক প্রমাণ নেই।

5/5 - (105 votes)

Farhana Mourin

আমি একজন বিউটি ব্লগার। রূপচর্চা বিষয়ক অনেক এক্সপেরিমেন্টের মাধ্যমে পাওয়া টিপস গুলো আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করি। আমাকে আরো উৎসাহিত করতে আমার দেয়া টিপস গুলো থেকে আপনি কতটুকু উপকার পেলেন তা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button