স্কিন কেয়ার

ব্রণের দাগ দূর করার উপায়

5/5 - (14 votes)

কোনো মেয়েই তার মুখে ব্রণ ও পিম্পল দেখতে চায় না। ব্রণ শুধু বেদনাদায়কই নয়, ব্রণের দাগ যদি সময়মতো যত্ন না নেওয়া হয় তাহলে সারা জীবন মুখে লেগেই থাকে। যেকোনো ধরনের ত্বকে ব্রণ দেখা দিতে পারে, তবে তৈলাক্ত ত্বকের লোকেদের এটির প্রবণতা বেশি। এমন পরিস্থিতিতে ব্রণ হওয়ার আশঙ্কাও বেড়ে যায়। এই পোস্টে, আমরা এই সমস্যাটি নিয়ে আলোচনা করব এবং কীভাবে কোন উপায়ে ব্রণের দাগ থেকে মুক্তি পাবেন তা বলব।

প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক কী কারণে ব্রণ হয়ঃ ব্রণ কেন হয় এবং ব্রণ হলে করণীয়

Contents

ব্রণের দাগের কারণ

এখানে আমরা আপনাকে এই সম্পর্কে কিছু তথ্য দিচ্ছি। ব্রণ দুই ধরনের হয় – অ-প্রদাহজনক এবং প্রদাহজনক।

যদিও হোয়াইটহেডস এবং ব্ল্যাকহেডগুলি অ-প্রদাহজনক ব্রণ, প্রদাহজনকগুলির মধ্যে রয়েছে প্যাপিউলস, পুস্টুলস, নোডুলস এবং সিস্ট। এর মধ্যে প্রদাহজনিত অর্থাৎ স্ফীত ব্রণ থেকে দাগ পড়ার আশঙ্কা থাকে। প্রদাহজনক ব্রণ ঘটে যখন আপনার ত্বকের ছিদ্রগুলি অতিরিক্ত তেল, মৃত কোষ এবং ময়লা দিয়ে আটকে যায়। এতে ত্বকের ছিদ্রগুলো ফুলে যায়। এই কারণেই যখন ফলিকল প্রাচীর প্রসারিত হয় এবং ভেঙে যায় এবং ছিদ্রগুলিতে প্রদাহ সৃষ্টি করে।

যদি এই ক্ষতি আপনার ত্বকের পৃষ্ঠের কাছাকাছি ঘটে তবে এটি দ্রুত নিরাময় করা যায়, তবে ক্ষতটি যদি গভীর হয় তবে এটি আরও গুরুতর হতে পারে। এই সংক্রমণের কারণে, এটি ডার্মিসে (ত্বকের অন্য পৃষ্ঠ) পৌঁছাতে পারে এবং সুস্থ ত্বকের কোষগুলিকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

ব্রণের দাগের প্রকার

ব্রণের দাগের ধরন জানার এখনই সময়। আপনি যদি আপনার পিম্পলের দাগ দূর করতে চান তবে এর ধরনগুলি জানাও গুরুত্বপূর্ণ। অনেক ধরনের ব্রণের দাগ আছে, যার মধ্যে কয়েকটির নাম আমরা নিচে আপনাদের বলছি।

আইস-পিক দাগ – এগুলি ছোট, গাঢ় এবং পুরু বা দাগযুক্ত দাগ।

গোলাকার দাগ – এই দাগগুলি গর্তের মতো।

বক্সাকার দাগ – এগুলি স্ফীত পিম্পলের পরে ঘটে। এগুলি ছোট, তবে এগুলি দেখতে মনে হয় যেন কেউ আপনার ত্বকে বিদ্ধ করেছে৷

Atrophic scars – এটি খুব সাধারণ। এই দাগগুলো চ্যাপ্টা, পাতলা এবং ছিদ্রযুক্ত। এই দাগগুলি বেশিরভাগই গুরুতর ব্রণ বা চিকেনপক্সের পরে ঘটতে পারে।

হাইপারট্রফিক দাগ – এগুলি ত্বকের পৃষ্ঠ থেকে উদ্ভূত হয় এবং পিণ্ডের মতো পুরু হয়।

ব্রণের দাগের ধরন জানার পর এবার ব্রণের দাগ দূর করার উপায় সম্পর্কে জানার পালা। নীচে আমরা আপনাকে কিছু ঘরোয়া প্রতিকারের কথা বলছি, যা অবলম্বন করে আপনি অনেকাংশে ব্রণের দাগ থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

ব্রণের দাগ দূর করার উপায়ঃ Pimples scars এর ঘরোয়া প্রতিকার

আমি এখানে কিছু ঘরোয়া প্রতিকারের কথা বলছি। একটি জিনিস মনে রাখবেন যে এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্রণের দাগের গভীরতা এবং তীব্রতার উপর নির্ভর করে। যদি দাগগুলি গুরুতর, পুরানো এবং গভীর হয়, তবে তাদের অপসারণের জন্য বিশেষজ্ঞের পরামর্শ প্রয়োজন।

কমলার খোসার গুঁড়া

কমলার খোসার গুঁড়া দিয়ে ব্রণের দাগ দূর করার উপায়

জিনিসপত্র

এক চামচ কমলার খোসার গুঁড়া (আপনি চাইলে কমলার খোসার গুঁড়া রোদে শুকিয়েও তৈরি করতে পারেন অথবা বাজার থেকেও কিনতে পারেন)
এক চামচ মধু

ফেসপ্যাকটি কিভাবে বানাবেন

একটি পাত্রে কমলার খোসার গুঁড়া এবং মধু মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।

এবার এই পেস্টটি পিম্পলের দাগের উপর লাগান।
শুকানোর জন্য কিছুক্ষন অপেক্ষা করুন এবং তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার ব্যবহার করবেন?

আপনি প্রতি সপ্তাহে ২-৩ বার ব্যবহার করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

কমলার মতো কমলার খোসারও অনেক গুণ রয়েছে। কমলার খোসার রং ব্রণের দাগ হালকা করার বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যার কারণে এটি ব্রণের দাগ এবং পিগমেন্টেশন কমাতে পারে।

নারকেল তেল

জিনিসপত্র

এক চা চামচ নারকেল তেল

ব্যবহারের পদ্ধতি

আপনার হাতের তালুতে এক চামচ নারকেল তেল লাগান।
এবার এই তেল মুখে লাগান, বিশেষ করে ব্রণের কারণে সৃষ্ট দাগের উপর।
রাতে লাগান এবং সারারাত রেখে দিন।
তারপর পরদিন সকালে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি সপ্তাহে ২-৩দিন এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ত্বকের জন্য নারকেল তেলের অনেক উপকারিতা রয়েছে। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ই সমৃদ্ধ, যা আপনার ত্বকে স্বাস্থ্যকর টিস্যু গঠনে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে ত্বকে যোগ করে নতুন প্রাণ ও ত্বককে প্রাণবন্ত করে তোলে। নারকেল তেলের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলি নতুন পিম্পলের কারণে হওয়া ক্ষতি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। এটি আপনার ছিদ্রগুলিকে আটকাতে পারে। অতএব, আপনার ত্বকে কোনো অ্যালার্জি বা প্রতিক্রিয়া আছে কিনা তা দেখার জন্য আপনি প্রথমে একটি প্যাচ টেস্ট করুন বা ত্বকের একটি ছোট অংশে এটি প্রয়োগ করে একবার পরীক্ষা করুন।

বেসন দিয়ে ব্রণের দাগ দূর করার উপায়

জিনিসপত্র

এক চামচ বেসন
গোলাপ জল বা লেবুর রস (প্রয়োজনমত)

তৈরির নিয়ম

এক চামচ বা আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী বেসন নিন এবং তাতে গোলাপ জল যোগ করে একটু ঘন পেস্ট তৈরি করুন।
এবার এই পেস্টটি আপনার মুখে, ঘাড়ে এবং ব্রণের দাগের উপর লাগান।
তারপর কিছুক্ষণ শুকাতে দিন এবং শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার

আপনি এটি ১দিন পর পর ব্যবহার করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ত্বক সংক্রান্ত সমস্যায় বহু বছর ধরে বেসন ব্যবহার হয়ে আসছে। ত্বকের সমস্যা যেমন, ব্রণ এবং ব্রণের দাগ দূর করতে বেসন একটি ভালো প্রতিকার। এতে উপস্থিত এক্সফোলিয়েটিং (মৃত ত্বক অপসারণ) এবং বর্ণ উজ্জ্বল করার বৈশিষ্ট্যগুলি ত্বকের দাগ অনেকাংশে কমাতে পারে।

চা গাছের তেল

জিনিসপত্র

তিন থেকে চার ফোঁটা চা গাছের তেল
এক চা চামচ নারকেল তেল

তৈরির পদ্ধতি

নারকেল তেলে তিন থেকে চার ফোঁটা টি ট্রি অয়েল মিশিয়ে নিন।
তেলের এই মিশ্রণটি দাগের উপর সারারাত রেখে দিন বা সকালে গোসলের এক বা দুই ঘণ্টা আগে লাগান।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি এটি প্রতিদিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

টি ট্রি অয়েল ব্রণ-প্রবণ ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। এটি কেবল ব্রণই কমায় না, এতে উপস্থিত অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলিও দাগ কমাতে পারে। এটি ঠিক বেনজয়াইল পারক্সাইডের মতো কাজ করে, তবে প্রভাব ফেলতে কিছুটা সময় লাগে।

আপেল সিডার ভিনেগার

জিনিসপত্র

এক চামচ আপেল সিডার ভিনেগার
দুই চামচ মধু
জল

কিভাবে তৈরি করবেন

এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনেগারের সাথে দুই চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন।
এই মিশ্রণে কিছু জল যোগ করুন, যাতে এটি ভালভাবে দ্রবীভূত হয়।
এবার এই মিশ্রণটি আপনার মুখে এবং ব্রণের দাগ তুলার জন্য লাগান।
এরপর 10 থেকে 15 মিনিট রেখে তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি প্রতিদিন বা প্রতি ১ দিন পর পর এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

আপেল ভিনেগারে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ব্রণ দূর করে। একই সময়ে, এর অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলি ব্রণের প্রদাহ কমায়, এর লালভাব কমিয়ে দাগগুলিও হালকা করে। যাইহোক, এটি আপনার ত্বককে শুষ্ক করে দিতে পারে, তাই এটি ব্যবহারের পরে ময়েশ্চারাইজার লাগান।

অ্যালোভেরা জেল

কিভাবে লাগাবেন

অ্যালোভেরা পাতা থেকে অ্যালোভেরা জেল বের করুন (বাজার থেকেও অ্যালোভেরা জেল কিনতে পারেন)।
রাতে ঘুমানোর আগে আপনার ব্রণের দাগের উপর জেলটি লাগান।
সারারাত রেখে দিন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি এটি প্রতিদিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

অ্যালোভেরায় রয়েছে পলিস্যাকারাইড এবং জিবেরেলিন, যা ত্বকের দাগ কমাতে পারে। এছাড়াও এতে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য ত্বককে স্বাস্থ্যকর করে তোলে। এছাড়াও, ধুলো-মাটি, দূষণ, সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি এবং অন্যান্য কারণে ত্বকের ক্ষতি কমাতে পারে।

বেকিং সোডা

জিনিসপত্র

দুই চা চামচ বেকিং সোডা
এক চামচ জল

ব্যবহার পদ্ধতি

এক চা চামচ পানির সাথে দুই চা চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে নিন।
এবার এই মিশ্রণটি ব্রণের দাগের উপর লাগান।
তারপর শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি প্রতিদিন এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

বেকিং সোডার এক্সফোলিয়েটিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বকের মৃত কোষ দূর করে। বেকিং সোডায় সামান্য লবণাক্ততা থাকে, যা ত্বকের পিএইচ স্তরের ভারসাম্য বজায় রাখে। এর সাহায্যে ব্রণ ও ব্রণের দাগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

লেবুর রস

জিনিসপত্র

অর্ধেক লেবু
সুতি পশম

কিভাবে ব্যবহার করে?

একটি পাত্রে অর্ধেক লেবুর রস বের করে নিন।
এবার এতে একটি তুলোর বল ডুবিয়ে সেই রস আপনার দাগের উপর লাগান।
10 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি প্রতি ১দিন পর পর এটি ব্যবহার করতে পারবেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

লেবুতে উপস্থিত ভিটামিন-সি থাকায় লেবুতে রয়েছে ত্বক পরিষ্কার ও উজ্জ্বল করার গুণ। অতএব, এটি ব্রণের দাগ দূর করতে পারে।

ক্যাস্টর অয়েল

জিনিসপত্র

ক্যাস্টর অয়েল (প্রয়োজনমত)

ব্যবহার পদ্ধতি

রাতে আপনার আঙ্গুলে কয়েক ফোঁটা ক্যাস্টর অয়েল নিন এবং আপনার ব্রণের দাগের উপর লাগান।

ঘুমানোর আগে এটি লাগান এবং সারারাত রেখে দিন।

পরদিন সকালে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফেসওয়াশ বা সাবান দিয়েও মুখ পরিষ্কার করতে পারেন।

সপ্তাহে কয়দিন ?

আপনি এটি প্রতিদিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ক্যাস্টর অয়েলে রয়েছে ভিটামিন-ই এবং ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, যা দাগ এবং ক্ষতিগ্রস্ত টিস্যু নিরাময় করে। এটি ছাড়াও, এটি পিগমেন্টেশন এবং দাগ কমাতে পারে।

হলুদ দিয়ে ব্রণের দাগ দূর করার উপায়

জিনিসপত্র

এক বা দুই চা চামচ হলুদ গুঁড়ো
অর্ধেক লেবু

ব্যবহার পদ্ধতি

লেবুর রসে এক বা দুই চা চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে নিন।
এবার এই পেস্টটি সারা মুখে লাগান।
তারপর 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি এটি প্রতি এক দিন পর পর প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

হলুদের অনেক উপকারিতা রয়েছে এবং এটি ত্বকের ক্ষেত্রে, ত্বক উজ্জ্বল করতে কয়েকশ বছর ধরে হলুদ ব্যবহার করা হচ্ছে। এটি দাগকে হালকা করে ত্বকের বর্ণ উজ্জ্বল করে। এতে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য ত্বকের গুণমান বাড়িয়ে ত্বককে সুস্থ করে তোলে।

ভিটামিন

ভিটামিন সি, ই এবং এ আপনার ত্বকের জন্য দুর্দান্ত উপকারি। সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি আপনার ত্বক থেকে ভিটামিন এ দূর করতে পারে, যার কারণে আপনি বলি এবং দাগের অভিযোগ করতে পারেন। একই সময়ে, ভিটামিন-ই আপনার ত্বককে সুস্থ করে তোলে। ভিটামিন-সি এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ক্ষমতা আপনার ত্বকের টিস্যু মেরামত করে। এটি কোলাজেন গঠনেও সাহায্য করে, যাতে দাগ কমানো যায়। আপনি প্রতিদিন সাইট্রাস ফল, শাক, গাজর, মাছ, কটেজ পনির এবং পালং শাক খাওয়ার মাধ্যমে এই ভিটামিনগুলি পেতে পারেন।

আলু

জিনিসপত্র

চূর্ণ কাঁচা আলু
সুতি পশম

প্রস্তুত প্রণালী

একটি কাঁচা আলু গুঁড়ো করে এর রস বের করুন।
তারপর এই রসে তুলোর উল ডুবিয়ে আপনার পুরো মুখে লাগান বা ব্রণের উপর বা দাগের উপর লাগান।
20 থেকে 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

প্রতিদিন একবার এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ত্বক উজ্জ্বল করতে এবং দাগ কমাতে আলু ব্যবহার করা হয়। এর কৃতিত্ব আলুর লবণাক্ততা এবং গঠনকে যায়।

কোকো মাখন

জিনিসপত্র

কোকো বাটার (প্রয়োজন অনুযায়ী, এটি বাজারে সহজেই পাওয়া যায়)

ব্যবহার পদ্ধতি

রাতে ঘুমানোর আগে সামান্য কোকো বাটার নিয়ে মুখে লাগান।
আপনি যদি চান তবে আপনি এটি শুধুমাত্র আপনার ব্রণের দাগের উপর প্রয়োগ করতে পারেন।
সারারাত মুখে লাগিয়ে রেখে পরদিন সকালে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি এটি প্রতিদিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

কোকো মাখন ত্বককে ময়শ্চারাইজ করে এবং দাগের টিস্যুকে নরম বা হালকা করতে পারে। এটি আপনার ত্বকের রং উজ্জ্বল করে এবং দাগও কমায়।

মধু মাস্ক

জিনিসপত্র

এক চামচ মধু
অর্ধেক লেবু (এটি ঐচ্ছিক)

ব্যবহার পদ্ধতি

অর্ধেক লেবুর রসের সাথে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন।
এবার এই মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ২০ থেকে ৩০ মিনিট রেখে দিন।
তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি প্রতিদিন বা প্রতি ১ দিন ব্যবধানে এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

আপনি জানেন যে লেবু এবং মধু খেলে ওজন কমে, তবে এটি আপনার ব্রণের দাগও দূর করে। মধুতে রয়েছে অ্যান্টিসেপটিক এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য, যা ক্ষতিগ্রস্থ ত্বক নিরাময় করে এবং ব্রণ উঠতে বাধা দেয়। এছাড়াও, মধুতে উপস্থিত ময়শ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য দাগের টিস্যুকে নরম করে এবং ত্বককে মেরামত করে।

গোলাপ জল

জিনিসপত্র

গোলাপ জল
সুতি পশম

ব্যবহার পদ্ধতি

গোলাপ জলে তুলা ডুবিয়ে তা দিয়ে পুরো মুখ পরিষ্কার করুন।
এর পর মুখ ধুবেন না।

সপ্তাহে কতবার?

এটি দিয়ে আপনি প্রতিদিন আপনার মুখ পরিষ্কার করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

গোলাপ জল ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে এবং দাগের টিস্যুকে নরম করে। উপরন্তু, এটি ব্রণের দাগ কমায় এবং নতুন ত্বকের কোষ গঠনে সাহায্য করে।

রসুন

জিনিসপত্র

এক বা দুটি রসুনের কোয়া

ব্যবহার পদ্ধতি

রসুনের খোসা ছাড়িয়ে এক বা দুটি লবঙ্গ নিন।
কুঁড়ি ভেঙ্গে আপনার দাগের উপর ঘষুন, যাতে এর রস আপনার দাগের উপর পড়ে।
রাতে ঘুমানোর আগে এটি লাগান এবং সারারাত রেখে দিন।
পরদিন সকালে পানি বা ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি এটি সপ্তাহে ২দিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

যখন রসুনের সাথে লবঙ্গ চূর্ণ মিশ্রিত করা হয়, তখন এটি থেকে অ্যালিসিন নামক একটি যৌগ নিঃসৃত হয়, যা অত্যন্ত শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য যুক্ত। রসুনের এই বৈশিষ্ট্যগুলি ব্রণের দাগ থেকে মুক্তি পেতে এবং আরও ব্রণ হওয়া থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। যাইহোক, আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে, কারণ রসুন কখনও কখনও ত্বকে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া, চুলকানি বা জ্বালা হতে পারে। অতএব, প্রথমে একটি প্যাচ পরীক্ষা করুন এবং যদি আপনি জ্বলন বা চুলকানি অনুভব করেন তবে ব্যবহার করবেন না, কারণ রসুন অগত্যা প্রত্যেকের ত্বকের জন্য উপযুক্ত নাও হতে পারে।

বাদাম তেল

জিনিসপত্র

কয়েক ফোঁটা বাদাম তেল

ব্যবহার পদ্ধতি

রাতে ঘুমানোর আগে হাতে কিছু বাদাম তেল নিয়ে মুখে লাগান।
সারারাত রেখে দিন।
পরের দিন মুখ ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

প্রতিদিন রাতে বাদামের তেল লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ত্বকের জন্য বাদাম তেলের অনেক উপকারিতা রয়েছে। এটি ভিটামিন-ই এবং ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা দাগ হালকা করে এবং ত্বককে নরম ও কোমল করে। বাদাম তেল প্রয়োগ করলে রোদে পোড়া, অ্যালার্জি, ব্রণ এবং ত্বকের অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আদা

জিনিসপত্র

চূর্ণ আদা

ব্যবহার পদ্ধতি

কিছু আদা নিয়ে ভালো করে গুঁড়ো করে নিন।
তারপরে এটি দাগের উপর প্রয়োগ করুন এবং 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি এটি প্রতিদিন প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

আদার মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি শুধুমাত্র ব্রণের দাগ কমাতে পারে না, এটি ব্রণও কমাতে পারে।

ডিমের সাদা অংশ

জিনিসপত্র

এক বা দুটি ডিম
এক চা চামচ লেবুর রস

ব্যবহার পদ্ধতি

একটি বা দুটি কাঁচা ডিম নিন, একটি আলাদা পাত্রে সাদা অংশ নিন।
এবার এতে এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিন।
তারপর এই মিশ্রণটি আপনার মুখে এবং দাগের উপর লাগান।
এটি 30 মিনিটের জন্য রাখুন এবং তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফেসওয়াশ বা সাবান দিয়েও মুখ ধুতে পারেন।

সপ্তাহে কত বার?

আপনি প্রতিদিন এই মিশ্রণটি ব্যবহার করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ডিমের সাদা অংশে ত্বককে টানটান করে এবং ত্বক-স্বাস্থ্যকর বৈশিষ্ট্য রয়েছে। আপনি যদি এই প্যাকটি নিয়মিত ব্যবহার করেন তবে আপনার ব্রণের দাগ হালকা হতে শুরু করবে।

সবুজ চা

জিনিসপত্র

ব্যবহৃত সবুজ চা ব্যাগ

ব্যবহার পদ্ধতি

গ্রিন টি পান করার পর অবশিষ্ট গ্রিন টি ব্যাগ আপনার দাগের উপর লাগান।
সবুজ চা পাতা বের করে ফেসপ্যাক তৈরি করতে পারেন।
এর পাশাপাশি প্রতিদিন গ্রিন-টি খাওয়া উচিত।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি প্রতিদিন একবার এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

গ্রিন টি খাওয়া শুধু স্বাস্থ্যের জন্যই ভালো নয়, এটি ত্বকের জন্যও খুব ভালো। সবুজ চায়ে ক্যাটেচিন রয়েছে, যা শুধুমাত্র ব্রণের প্রদাহ কমায় না, ব্রণের দাগও কমায়। এই প্রতিকারটি আরও উপকারী হবে যদি আপনি প্রতিদিন গ্রিন-টি পান করেন এবং দিনে একবার ব্রণের দাগের উপর নিয়মিত লাগান। চা এর উপকারিতা

শিলা লবণ

জিনিসপত্র

আধা কাপ শিলা লবণ
পানি (প্রয়োজনমত)

ব্যবহার পদ্ধতি

আধা কাপ শিলা লবণ কিছু জলের সাথে মিশিয়ে একটি ঘন পেস্ট তৈরি করুন।
এবার এই মিশ্রণটি মুখে ও ঘাড়ে লাগিয়ে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করুন।
তারপর 15 থেকে 20 মিনিটের জন্য রেখে দিন।
এর পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

সপ্তাহে তিনবার লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

শিলা লবণে ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে, যার প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই সম্পত্তি ব্রণের দাগ কমাতে সহায়ক হতে পারে।

নিম

জিনিসপত্র

নিম পাতা (প্রয়োজনমত)
পানি (প্রয়োজনমত)

ব্যবহার পদ্ধতি

আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী নিম পাতা নিন এবং সামান্য জল যোগ করে একটি ঘন পেস্ট তৈরি করুন।
এবার এই পেস্টটি মুখের দাগের উপর লাগান।
তারপর 20 থেকে 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি চাইলে প্রতিদিন এটি প্রয়োগ করতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

বহু বছর ধরে নিম ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। আজকাল, নিমের গুণাগুণ বাজারে অনেক সাবান, ক্রিম এবং ফেস ওয়াশেও রয়েছে। নিম পাতায় অ্যান্টিসেপটিক, ক্ষত নিরাময় এবং শীতল করার বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ব্রণ নিরাময় করে এবং দাগ কমাতে পারে।

অ্যাভোকাডো ফেস মাস্ক

জিনিসপত্র

একটি পাকা আভাকাডো
এক চামচ মধু
অর্ধেক লেবু


ব্যবহার পদ্ধতি

একটি পাকা অ্যাভোকাডো সূক্ষ্মভাবে গুঁড়ো করুন।
এবার এক চামচ মধু ও অর্ধেক লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
আপনি এই মিশ্রণটি আপনার পিম্পল বা সারা মুখে লাগাতে পারেন।
20 থেকে 30 মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে কতবার?

আপনি প্রতি দিন এই মাস্ক লাগাতে পারেন।

এটা কিভাবে উপকারী?

ব্রণের দাগ দূর করার জন্য এটি খুবই উপকারী একটি ঘরোয়া উপায়। অ্যাভোকাডো আপনার ত্বকের ছিদ্র পরিষ্কার রেখে আপনাকে ব্রণ থেকে রক্ষা করে। এতে উপস্থিত ভিটামিন ব্রণের দাগও কমায়।

দ্রষ্টব্য: উপরোক্ত উপাদানগুলির মধ্যে যদি আপনার অ্যালার্জি থাকে তবে ব্যবহারের আগে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। এ ছাড়া যেকোনো ঘরোয়া প্রতিকার নেওয়ার আগে এর প্যাচ টেস্ট করে নিন। আপনি যদি প্যাচ পরীক্ষার সময় চুলকানি বা জ্বলন অনুভব করেন তবে অবিলম্বে এটি ধুয়ে ফেলুন।

যদিও এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি ব্রণের দাগের উপর জাদুর মত কাজ করে, কিন্তু একই সাথে আপনাকেও খেয়াল রাখতে হবে যাতে পরবর্তীতে আপনার ব্রণ না হয়। এর জন্য আপনাকে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে, যা সম্পর্কে আমরা আপনাকে নীচে বলছি।

পিম্পলের দাগ প্রতিরোধের কিছু প্রতিকার

  • প্রতিদিন অন্তত দুবার মুখ ধুয়ে নিন।
  • ঘুমানোর আগে আপনার মেকআপ মুছে ফেলুন।
  • যদি ব্রণ বেরিয়ে আসে তবে এটি চাপবেন না বা স্পর্শ করবেন না।
  • সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি এড়িয়ে চলুন এবং যখনই আপনি বাইরে যান, শুধুমাত্র সানস্ক্রিন লাগাবেন না, স্কার্ফ দিয়ে মুখ ঢেকে রাখুন।
  • স্বাস্থ্যকর খাবার খান, ফলমূল, সবুজ শাকসবজি ও শুকনো ফল খান।
  • প্রচুর পানি পান করুন

সচরাচর জিজ্ঞাসিত প্রশ্নোত্তর

ব্রণের দাগ প্রতিরোধে কোন তেল ভালো?

নারকেল তেল, অলিভ অয়েল এবং ক্যাস্টর অয়েল আপনার ত্বক মেরামত করবে এবং কিছু পরিমাণে আপনার ব্রণের দাগও কমাতে পারে।

ব্রণ চিহ্ন এবং scars এর মধ্যে পার্থক্য কি?

ব্রণের দাগ গভীর এবং গর্তের মতো এবং কখনই পুরোপুরি নিরাময় হয় না। একই সময়ে, ব্রণের চিহ্নগুলি প্রথমে গাঢ় হয়, তবে কয়েক দিন এবং সপ্তাহের মধ্যে হালকা হতে শুরু করে।

স্ক্রাব কি পিম্পলের দাগ দূর করতে পারে?

হ্যাঁ, স্ক্রাব ব্রণর দাগ দূর করতে সহায়ক হতে পারে। আসলে, স্ক্রাব এক্সফোলিয়েশন (মরা চামড়া অপসারণ) হিসাবে কাজ করতে পারে। একই সময়ে, এক্সফোলিয়েশনের সাহায্যে, এটি ব্রণের দাগ থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করতে পারে।

কিভাবে রাতারাতি ব্রণ থেকে মুক্তি পাবেন?

এক রাতে ব্রণ দূর হয় না। সঠিক খাদ্যাভ্যাস এবং চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করে তাদের নিরাময়ে অবশ্যই সাহায্য করতে পারে। অতএব পোস্টে দেওয়া প্রতিকারগুলি অনুসরণ করুন এবং ব্রণ নিরাময়ের জন্য পর্যাপ্ত সময় দিন।

এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি পিম্পলের দাগ কিছুটা কমাতে পারে, তবে আমরা এই নিবন্ধে উপরে যেমন লিখেছি, এটি পিম্পলের দাগের গভীরতার উপর নির্ভর করে এটি বাড়িতে চিকিৎসা করা হবে বা আপনার একজন বিশেষজ্ঞ প্রয়োজন। কখনও কখনও কিছু ব্রণের দাগের জন্য ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি সময়মতো ব্রণগুলির প্রতি মনোযোগ দিয়ে চিকিৎসা শুরু করুন এবং প্রয়োজনে একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন। এই পোস্টে দেওয়া ঘরোয়া প্রতিকারগুলি গ্রহণ করার পরে, নীচের মন্তব্য বাক্সে আপনার অভিজ্ঞতা ভাগ করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button